প্রাচীন যুগের প্রভাবশালী ৫ জন নারী সম্রাজ্ঞী

150
0
বর্তমান বিশ্বের ১৯৮টি দেশে বিভিন্ন প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী, রাজা রানীরা শাসন করছেন। নানা নিয়ম কানুন পালন করে ও বিবিধ পরিস্থিতি বিবেচনা করে এই শাসকেরা দেশকে সুন্দরভাবে পরিচালনা করছেন। কিন্তু প্রাচীন কালে কি হতো? তখন কারা কিভাবে দেশ শাসন করত? সে প্রশ্ন নিশ্চয়ই আপনাদের অনেকের মনে ঘুরপাক খেয়েছে? তাই আজ আপনারা জানবেন প্রাচীন যুগের বিভিন্ন মহিলা শাসকদের অবিশ্বাস্য কিছু তথ্য এবং তাদের সমৃদ্ধ ও শক্তিশালী রাজত্ব পরিচালনা সম্পর্কে।

হ্যাটশেপসুট

হাটশেপসুট নামের অর্থ ‘সম্ভ্রান্ত নারীদের মধ্যে অগ্রগণ্য।’ হ্যাটশেপসুট ছিলেন থুতমোস প্রথম এবং তার রানী আহমসের কন্যার মধ্যে সবচেয়ে বড়। তার পিতার মৃত্যুর পর ১২ বছর বয়সী হাটশেপসুট মিশরের রানী হয়ে ওঠেন। যখন তিনি তার সৎ ভাই থুতমোস দ্বিতীয়কে বিয়ে করেন, তাদের একটি কন্যা হয় নেফেরুর নামে। ১৪৭৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দের দিকে থুটমোস দ্বিতীয় অল্প বয়সে মারা যান এবং সিংহাসনটি তার শিশু পুত্রের (সৎ) কাছে চলে যায়। প্রথা অনুসারে, হাটশেপসুট থুটমোস ৩য় এর রিজেন্ট হিসাবে কাজ শুরু করেছিলেন অর্থাৎ তার সৎ ছেলের বয়স না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্রের বিষয়গুলি পরিচালনা করতেন।
সাত বছরেরও কম সময় পরে, হ্যাটশেপসুট নিজেকে একজন ফারাওর উপাধি এবং পূর্ণ ক্ষমতা গ্রহণের অভূতপূর্ব পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। হ্যাটশেপসুট মিশরের সহ-শাসক হওয়ার পর, তিনি নিজেকে ঐশ্বরিক জন্ম বলে দাবি করেছিলেন।  সেই সময়ের মূর্তি এবং চিত্রগুলিতে, তিনি আদেশ দিয়েছিলেন যে তাকে দাড়ি এবং বড় পেশী সহ একজন পুরুষ ফারাও হিসাবে চিত্রিত করা হবে। হাটশেপসুট তার মুখ্যমন্ত্রী সেনেনমুট সহ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদে তার সমর্থকদের স্থান দিয়েছিল। কেউ কেউ পরামর্শ দিয়েছেন যে সেনেনমুটও হ্যাটশেপসুটের প্রেমিক হতে পারে, তবে এই দাবিকে সমর্থন করার জন্য খুব কম প্রমাণ বিদ্যমান।
হ্যাটশেপসুট ছিলেন স্বৈরাচার মনোভাবের অধিকারী। দেইর এল-বাহারিতে তার মন্দিরে খোদাই করা একটি শিলালিপিতে লেখা আছে – ‘যে মহারাজাকে শ্রদ্ধা করবে সে বেঁচে থাকবে; যে তার মহারাজের নিন্দা করে খারাপ কথা বলবে সে মারা যাবে।’ এ থেকেই বুঝা যায় হ্যাট শেপসুট জোর করে তার জনগনের মনে আনুগত্য আনতে চেয়েছিল। রানী তার রাজত্বকালে উচ্চাভিলাষী বিল্ডিং প্রকল্প হাতে নেয়, বিশেষ করে থিবসের আশেপাশের এলাকায়। তার সর্বশ্রেষ্ঠ কৃতিত্ব ছিল দেইর এল-বাহরিতে বিশাল স্মৃতিসৌধ মন্দির, যা প্রাচীন মিশরের স্থাপত্যের বিস্ময়গুলির মধ্যে একটি। নুবিয়া জয় করে, তিনি কাসর ইবরিম, সেমনা, ফারাস এবং বুহেন সহ বেশ কয়েকটি স্থানে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করেছিলেন।
হ্যাটশেপসুট এর মূর্তি। Image Source: someinterestingfacts.net
হ্যাটশেপসুট এর সময়কার নির্মাতাদের সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক স্থাপত্য কৃতিত্ব দেইর এল-বাহারিতে মন্দির। এর প্রাচীন নাম ছিল djeser-djeseru বা ‘পবিত্র স্থানগুলির মধ্যে সবচেয়ে পবিত্র।’ তার রাজত্বের আরেকটি বড় কৃতিত্ব ছিল একটি ব্যবসায়িক অভিযান যেটি হস্তীর দাঁত, আবলুস, স্বর্ণ, চিতাবাঘের চামড়া এবং ধূপ-সহ বিশাল সম্পদ ফিরিয়ে এনেছিল মিশরের পান্ট শহর থেকে। এই শহরকে বর্তমানে ইরিত্রিয়া (ঈশ্বরের ভূমি নামেও পরিচিত) বলা হয়। যাত্রাটি আসলে ছিলো একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈদেশিক সম্পর্কের ইঙ্গিত। পান্ট থেকে মিশরে আমদানি হয় যেসব জিনিস তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য- ভারী জাহাজের লোডিং, ঈশ্বরের জমির সমস্ত সুগন্ধযুক্ত কাঠ, তাজা গন্ধরস গাছের সাথে গন্ধরস-রজনের স্তূপ, আবলুস এবং খাঁটি হাতির দাঁত, ইমুর সবুজ সোনা। হ্যাটশেপসুট ছাড়া আর কোনো মিশরীয় শাসক পান্টে এতটা সফল হননি। কিন্তু তিনি মারা যাওয়ার পর তার স্মৃতিকে সম্মান করা হয়নি।
১৪৫৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দে তার মৃত্যুর পরপরই হ্যাটশেপসুটের স্মৃতিস্তম্ভগুলি আক্রমণ করা হয়, তার মূর্তিগুলিকে টেনে এনে ভেঙে ফেলা হয় এবং তার ছবি ও শিরোনামগুলি বিকৃত করা হয়। প্রত্নতাত্ত্বিকদের একটি দল ২০০৭ সালে তার মমি আবিষ্কার করে। এটি এখন কায়রোর মিশরীয় জাদুঘরে রাখা হয়েছে। আরও একটি জীবন-আকারের মূর্তি নিউ ইয়র্ক সিটির মেট্রোপলিটন মিউজিয়ামে প্রদর্শন করা হয়েছে যা তার সৎপুত্রের ধ্বংস থেকে রক্ষা পেয়েছিল।

শেবার রানী

শেবার রানীর নামটি বাইবেলে বহুবার উল্লেখ করা হয়েছে। তিনি ইসরায়েলের রাজা সলোমন (৯৬৫-৯৩১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) এর জ্ঞানের অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য জেরুজালেম ভ্রমণ করেন। এই রাণীর কথা বাইবেল ছাড়াও আরামাইক টারগুম শেনি, পবিত্র কুরআন এবং অবশেষে ইথিওপিয়ান কাজ-কেবরা নেগাস্টে পাওয়া যায়। রানী ইথিওপিয়া থেকে এসেছেন নাকি আরব থেকে এসেছেন তা নিয়ে বিতর্ক বহু শতাব্দী ধরে চলছে এবং নিঃসন্দেহে তা অব্যাহত থাকবে। বাইবেল অনুসারে কোন শক্ত প্রমাণ এখন অব্দি পাওয়া যায়নি যে শেবায় এমন কোনো রানীর অস্তিত্ব ছিল। তিনি সলোমনের মহান জ্ঞান এবং রাজ্যের গৌরব শুনে সন্দেহ করেছিলেন। তাই তিনি জেরুজালেমে গিয়েছিলেন ঘটনার সত্যতা যাচাই করার জন্য।
বাইবেল শুধুমাত্র বলে যে রানী ছিলেন ‘শেবার’ কিন্তু ‘শেবা’ কোথায় তা কখনোই নির্দিষ্ট করে না। রাজা সলোমনকে রাণী বিভিন্ন কঠিন প্রশ্ন করে যাচাই করতে চেয়েছিলেন যাতে সে সলোমনের প্রজ্ঞার দৌড় কতটুকু তা বুঝতে পারেন। সলোমোন কিন্তু তার উত্তর দিয়ে রানীকে সন্তুষ্ট করতে পেরেছিলেন! এরপর তিনি খুশি হয়ে সলোমনের অসামান্য প্রতিভার স্বীকৃতিস্বরূপ ১২০টি সোনার প্রতিভা উপহার দিয়েছিলেন। বাইবেলে রাণী সম্পর্কে আর কিছু উল্লেখ করা হয়নি। বাইবেল অনুসারে সলোমনের প্রজ্ঞা তাকে গাছ, পশু এবং পাখির ভাষা বুঝতে সক্ষম করেছিল।
রানী সেবা যখন সলোমনের সাথে দেখা করতে যান। Image Source: joydigitalmag.com
সলোমন তার রাজ্যের সমস্ত পশুপাখিকে মহান ভোজে আমন্ত্রণ জানায়। কাঠঠোকরা ছাড়া সকল পশুপাখি কৃতজ্ঞতার সাথে আমন্ত্রণ গ্রহণ করে। কাঠঠোকরা বলে যে সলোমন রাজা হিসেবে ততটা মহান নয়। এবং শেবার রানী তাকে যে সম্মান দিয়েছেন সেটারও যোগ্য নয়। সলোমন তখন কাঠঠোকরাকে ভুল প্রমাণ করার জন্য রাণীকে তার প্রাসাদে শ্রদ্ধা জানাতে আমন্ত্রণ জানান। এরপর তিনি তার অধীনে থাকা একটি আত্মাকে নির্দেশ দেন রানীর সিংহাসন তার কাছে নিয়ে যাওয়ার জন্য। তা দেখে রাণী যারপরনাই মুগ্ধ হন। রানী যখন কাঁচের মেঝে জুড়ে হাঁটতে থাকে তখন মেঝেকে জলের মতো পরিষ্কার লাগে তার কাছে। এসব কিছুই সে আশা করেনি, তাই খুব চমকপ্রদ লাগে তার কাছে। কিন্তু তারপরও সলোমনকে কঠিন ধাঁধা জিজ্ঞাসা করে পরীক্ষা করে। এবং সলোমন সঠিক উত্তর দিতে সক্ষম হয়। রানী তারপর তাকে শ্রদ্ধা জানায়, এবং সম্ভবত, পাখিটি সন্তুষ্ট হয়।
কুরআনে, শেবার রানী বিলকিস নামে পরিচিত এবং সে শেবার শক্তিশালী রাজ্যের উপর শাসন করেন। গল্পের এই সংস্করণে, বাইবেলের মতো, সলোমনকে (সুলায়মান হিসাবে উল্লেখিত) পাখি, প্রাণী এবং জিন নামে পরিচিত আধ্যাত্মিক সত্তার সাথে কথা বলার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। তিনি একদিন তার অধীন সবাইকে একত্রিত করেন কিন্তু তাদের মধ্যে হুপি পাখিটিকে খুঁজে পান না। কিছুক্ষণ পর হুপি পাখিটি উপস্থিত হয় এবং সুলায়মানকে জানায় যে সে অনেক দূর থেকে উড়ে এসে শেবা দেশে এসেছে। সে বলে – ‘আমি একজন মহিলাকে সে রাজ্যে শাসন করতে দেখেছি। তিনি খুবই শক্তিশালী সিংহাসনের অধিকারী এবং তার কোনে কিছুর অভাব নেই।’ এরপর সে বর্ণনা করে কিভাবে শেবার লোকেরা সূর্যের উপাসনা করে, আল্লাহকে নয় এবং কীভাবে শয়তান তাদের বিপথে চালিত করেছে। একথা শুনার পর সুলায়মান রানীকে তার রাজ্যে আসার আমন্ত্রণ জানিয়ে একটি চিঠি পাঠান। রানী সুলায়মানকে একজন বার্তাবাহকের মাধ্যমে উপহার পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেন, কিন্তু সুলায়মান তা প্রত্যাখ্যান করেন এবং বার্তাবাহককে বলেন যে, রানী মেনে না নিলে, তিনি তাদের বিরুদ্ধে এমন বাহিনী নিয়ে আসবেন যাদের প্রতিরোধ করার ক্ষমতা তাদের নেই। আরও বলেন তাদেরকে সেখান থেকে অপমানিত হয়ে বিতাড়িত হতে হবে। বার্তাবাহক চলে যাওয়ার পর, সুলায়মান তার সদস্যদের জিজ্ঞাসা করে যে তাদের মধ্যে কে রানী আসার আগে তাকে তার রাজকীয় আসনটি নিয়ে আসতে পারবে।
একটি জিন আশ্বাস দেয় সে এখনই নিয়ে আসতে পারবে। নিয়ে আসার পর সলোমন সিংহাসনটিকে ছদ্মবেশ দান করেন এরপর রানীকে জিজ্ঞেস করেন এটি তার সিংহাসন কিনা। সে উত্তর দেয় যে এটি তার মতোই দেখতে। তারপর তাকে প্যাভিলিয়নে প্রবেশ করতে বলা হয় যেখানে তিনি মেঝেতে পা রাখার আগে তার পা খালি করেন কারণ এটি এত পরিষ্কার যে তিনি মনে করেন এটি জল। স্ফটিক প্যাভিলিয়নের বিস্ময় এবং সেখানে তার নিজের সিংহাসনের উপস্থিতি রানীকে অভিভূত করে এবং সে বলে, ‘হে আমার প্রভু, আমি সত্যিই নিজের উপর অন্যায় করেছি এবং আমি সুলায়মানের সাথে সমস্ত সত্তার পালনকর্তার কাছে আত্মসমর্পণ করেছি।’ এখানেই পবিত্র কুরআনের বর্ণনা শেষ হয় কিন্তু ইসলামিক ঐতিহ্য এবং কিংবদন্তি থেকে জানা যায় যে তিনি সুলায়মানকে বিয়ে করেছিলেন।

ক্লিওপেট্রা

মিশরের ক্লিওপেট্রা সপ্তম ছিলেন টলেমিক রাজবংশের শেষ সক্রিয় শাসক। মাত্র আঠারো বছর বয়সে তিনি তার ভাই টলেমি অষ্টম এর সাথে সহ-শাসক হিসেবে সিংহাসন লাভ করেন। তিনি তার স্বামীও ছিলেন কারণ ফারাওদের মধ্যে ভাইবোনদের বিয়ে করা স্বাভাবিক ছিল। যেহেতু ক্লিওপেট্রা একজন শক্তিশালী স্বাধীন মহিলা ছিলেন, তাকে তার ১০ বছর বয়সী ভাইয়ের হুমকি স্বরূপ দেখা হয়। তাই, টলেমির অভিভাবকরা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে এবং তাকে তিন বছরের নির্বাসনে পাঠায়। সবাই আশা করেছিল ক্লিওপেট্রা নির্বাসনের সময় ভেঙে পড়বে এবং হাল ছেড়ে দেবেন। কিন্তু সেই সময় ক্লিওপেট্রা তার জ্ঞান বাড়াতে পড়াশুনা করেছেন এবং দিনে দিনে আরও স্মার্ট হয়ে উঠেছেন। যেদিন তিনি নির্বাসন শেষে রাজ্যে ফিরে আসেন, সেদিন সবাই এক নতুন ক্লিওপেট্রাকে আবিষ্কার করে। তার সময়ের বেশিরভাগ রাজার মতো, ক্লিওপেট্রা নিজেকে ঐশ্বরিক হিসাবে দেখতেন। জন্মের শুরুতেই তাকে এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের দেবতা এবং দেবী হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। তিনি ছিলেন অত্যন্ত ইমেজ-সচেতন ও জাঁকজমক প্রদর্শনে ভরপুর। তাই সবার কাছে তাকে রহস্যময়ী লাগত। নিজেকে দেবতা আইসিস এবং অ্যাফ্রোদিতির সাথে তুলনা করতেন। যার জন্য তাকে ঘিরে বাস্তবে অনেক পুরাণ তৈরি হয়েছে।
ক্লিওপেট্রা একটি সম্পূর্ণ সাম্রাজ্য শাসন করেছিলেন অত্যন্ত পুরুষ আধিপত্যবাদী সমাজের বিরুদ্ধে লড়াই করে। এবং শুধু অন্ধভাবে লড়াই করেননি, সে তার বুদ্ধি ব্যবহার করেছেন এবং নিশ্চিত করেছেন যে সে তার সম্পদ বা রিসোর্সকে ভালোভাবে ব্যবহার করছেন। যেহেতু তিনি বিশ্বকে ঘনিষ্ঠভাবে অধ্যয়ন করেছিলেন, ক্লিওপেট্রা জানতেন যে তার সাম্রাজ্যই একমাত্র শক্তিশালী নয়। সেই যুগের অন্যতম শক্তিশালী ব্যক্তি জুলিয়াস সিজারের কাছ থেকে তার রাজ্য দখল করার সম্ভাব্য হুমকি ছিল। শত্রুদের সম্পূর্ণরূপে শেষ করার একমাত্র উপায় হল তাদের বন্ধু করা। আর সেটাই করলেন রানী ক্লিওপেট্রা। ক্লিওপেট্রার প্রথম জোট ছিল রোমান জেনারেল এবং স্টেটসম্যান, পরাক্রমশালী জুলিয়াস সিজারের সাথে। শীঘ্রই এই দম্পতি সিজারিয়ন নামে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। দুর্ভাগ্যবশত, তাদের জোট দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। কিছুদিন পর মার্ক অ্যান্টনি রাণীকে মিশর সফরের আমন্ত্রণ জানান। তখনই তাদের মধ্যে এক অবিচ্ছেদ্য বন্ধন গড়ে উঠে। রাজনীতি থেকে বহু দূরের সংস্কৃতির প্রতি অ্যান্টনির গভীর ভালোবাসা ছিল। ক্লিওপেট্রা স্বশিক্ষিত হওয়ায় সহজেই তার সাথে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে সংযোগ স্থাপন করতে পারেন। শীঘ্রই, এই দম্পতি যমজ সন্তান ক্লিওপেট্রা সেলিন এবং আলেকজান্ডার হেলিওসকে পৃথিবীতে স্বাগত জানায়। যমজ সন্তানদের পরে তাদের আরেকটি পুত্র জন্ম নেয়, টলেমি ফিলাডেলফাস। কিন্তু এই জোটও বেশিদিন স্থায়ী হয়নি কারণ অ্যান্টনির স্ত্রী এবং তার ছোট ভাই তার রাজ্যে সমস্যা তৈরি করতে শুরু করেছিলেন।
ক্লিওপেট্রাকে নিয়ে হলিউডে বানানো হয়েছে বিভিন্ন সিনেমা। Image Source: whfpdubai.com
ক্লিওপেট্রা গর্বিতভাবে তার মেয়েলি দিকটি গ্রহণ করেছিলেন। ইতিহাসবিদরা বিশ্বাস করেন যে ক্লিওপেট্রা বিষ পান করে আত্মহত্যার মাধ্যমে মারা গিয়েছিলেন । তিনি ভূমধ্যসাগরীয় বিশ্বের সবচেয়ে ধনী জাতি এবং রোম থেকে স্বাধীন থাকার জন্য মিশর শাসনের ব্যবসা শুরু করেছিলেন। কিন্তু তার পূর্বপুরুষদের থেকে ভিন্ন, মিশরীয় ভাষা শিখতে গিয়ে ক্লিওপেট্রা খানিকটা বিরক্ত হয়েছিলেন। মিশরীয় দর্শকদের জন্য, তিনি ঐতিহ্যবাহী মিশরীয় শৈলীতে নিজের প্রতিকৃতি তৈরি করেছিলেন। ক্লিওপেট্রার বৈদেশিক নীতির লক্ষ্য ছিলো তার ব্যক্তিগত ক্ষমতা সংরক্ষণের পাশাপাশি দ্রুত সম্প্রসারিত রোমান সাম্রাজ্য থেকে মিশরের স্বাধীনতা বজায় রাখা। প্রাচ্যের দেশগুলির সাথে বাণিজ্যের মাধ্যমে আরব এবং সম্ভবত ভারতের মতো দূরে তিনি মিশরের অর্থনীতি গড়ে তুলেছিলেন। বিশ্ব শক্তি হিসাবে তার দেশের মর্যাদাকে শক্তিশালী করেছিলেন। প্রাচীন সূত্রগুলি স্পষ্ট করে যে ক্লিওপেট্রা এবং অ্যান্টনি একে অপরকে ভালবাসতেন এবং ক্লিওপেট্রা অ্যান্টনির তিনটি সন্তানের জন্ম দেন; তবুও, সম্পর্কটি একজন মিশরীয় রাণীর জন্যও খুব দরকারী ছিল যিনি তার সাম্রাজ্যকে প্রসারিত করতে এবং রক্ষা করতে চেয়েছিলেন। তার জীবদ্দশায় এবং তার মৃত্যুর পরের শতাব্দীতে, তার শত্রুগণ, ক্লিওপেট্রাকে একজন বিপজ্জনক বেশ্যা হিসাবে চিত্রিত করেছিল। তারা বলত ক্লিওপেট্রা যৌনতা, জাদুবিদ্যা এবং ধূর্ততার স্রষ্টা।
আমরা প্রায় নিশ্চিতভাবেই জানি যে ক্লিওপেট্রা, তার দুই সবচেয়ে বিশ্বস্ত ভৃত্যসহ, অক্টাভিয়ানের হাতে ধরা থেকে বাঁচতে ১২ আগস্ট, ৩০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে আত্মহত্যা করেছিলেন। যাইহোক, যেহেতু তার মৃত্যুর ঘটনাগুলি এমনকি যারা মৃতদেহ খুঁজে পেয়েছিল তাদের কাছেও অস্পষ্ট ছিল, তাই আমরা কখনই জানতে পারব না যে তিনি কিভাবে মারা যান। ক্লিওপেট্রাকে অমরত্ব পান ফেব্রুয়ারী ২০০৭ সালে। কিভাবে? তার প্রতিকৃতি সম্বলিত একটি সম্প্রতি আবিষ্কৃত মুদ্রা ইংল্যান্ডের নিউক্যাসল বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রদর্শন করা হয়েছিল, যা রাণীর প্রতি নতুন করে সকলের আগ্রহের সৃষ্টি করে। এবং সে সত্যিই আমাদের কল্পনার মতো সুন্দর ছিল কিনা তা নিয়ে বিতর্ক শুরু করে। ৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দের মুদ্রাটি একটি বড় নাক, সরু ঠোঁট এবং একটি ধারালো চিবুক সহ ক্লিওপেট্রা তৈরি করে। প্রাচীন ইতিহাসবিদরা কখনই ক্লিওপেট্রাকে মহান সৌন্দর্য হিসেবে চিহ্নিত করেননি এবং তার সময়ে তাকে রোমান্টিক নায়িকা হিসেবে বিবেচনা করা হতো না। ক্লিওপেট্রার প্রভাব মানুষের মধ্যে যে কারণে সবচেয়ে বেশি সঞ্চারিত হয় তার মূলে ছিলো তার যৌনতা ও তার বুদ্ধিমত্তা।

জেনোবিয়া

জেনোবিয়া ২৪০ খ্রিস্টাব্দের কাছাকাছি সময়ে সিরিয়ার পালমিরাতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার পুরো নাম জুলিয়া অরেলিয়া জেনোবিয়া। এই সময়ে সিরিয়া একটি রোমান প্রদেশ ছিল, জেনোবিয়া একজন রোমান নাগরিক ছিলেন, কারণ তার পিতার পরিবারকে এই মর্যাদা দেওয়া হয়েছিল, সম্ভবত মার্কাস অরেলিয়াস এর রাজত্বকালে। জেনোবিয়া গ্রীক এবং ল্যাটিন ভাষায় শিক্ষিত ছিলেন, তবে খানিকটা দুর্বলও ছিলেন। কিন্তু তিনি মিশরীয় ও আরামাইক ভাষায় বেশ পারদর্শী ছিলেন। আরো জানতেন আরবী ভাষা। তিনি বিভিন্ন নামে মানুষের কাছে পরিচিত, যথা – সেপ্টিমা জেনোবিয়া, সেপ্টিমিয়া জেনোবিয়া, ব্যাট-জাব্বাই (আরামাইক), বাথ-জাব্বাই, জয়নাব, আল-জাব্বা (আরবি), জুলিয়া অরেলিয়া জেনোবিয়া ক্লিওপেট্রা। তিনি ঘোড়ায় চড়তে পারদর্শী ছিলেন এবং খুবই ধৈর্যশীল ও সহনশীল ছিলেন। তিনি তার সৈন্যদের সাথে দীর্ঘ দূরত্বে পায়ে হেঁটে যেতেন, যে কোনও পুরুষের মতো শিকার করতে পারতেন এবং পুরুষদের মতো বিপুল মদ পান করতে পারতেন। তিনি দাবি করেছেন মিশরের মেসিডোনিয়ান রাজা থেকে তার বংশধর উদ্ভূত। সেই সময়কার সকলের দাবি সৌন্দর্যে জেনোবিয়ার পূর্বপুরুষ ক্লিওপেট্রার সমান এবং সতীত্ব ও বীরত্বের দিক থেকে সেই মহান ক্লিওপেট্রাকেও ছাড়িয়ে গেছেন। সে ছিল গাঢ় বর্ণের। তার দাঁত ছিল মুক্তোর মতো ঝকঝকে এবং তার বড় কালো চোখগুলি অস্বাভাবিক জ্বলজ্বল করত। তার কণ্ঠস্বর ছিল শক্তিশালী এবং সুরেলা।
২৫৮ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে, জেনোবিয়া সিরিয়ার রোমান গভর্নর লুসিয়াস সেপ্টিমাস ওডেনথাসের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন, যার সাথে তার একটি পুত্রসন্তান হয়, নাম ভ্যাবালাথাস। ২৬১ খ্রিস্টাব্দে, যখন দখলকারী কুইটাস গ্যালিয়ানিয়াসের শাসনকে চ্যালেঞ্জ করেছিল, ওডেনথাস তাকে পরাজিত করে হত্যা করেছিলেন এবং এর পরে, রোম থেকে প্রায় স্বাধীনভাবে তার রাজ্যে কার্যকরভাবে শাসন করার জন্য যথেষ্ট ক্ষমতা এবং প্রতিপত্তি ছিল। ২৬৬/২৬৭ খ্রিস্টাব্দে একটি শিকার ভ্রমণের পরে একটি বিবাদের পর তার ভাগ্নের দ্বারা তার পুত্র হেরোডস সহ তাকে হত্যা করা হয়েছিল। জেনোবিয়া রাণী থাকা অবস্থায় নিজেকে যেসব বুদ্ধিজীবী এবং দার্শনিকদের দ্বারা আদালতে ঘিরে রেখেছিলেন, তাদের মধ্যে প্লেটোনিস্ট ক্যাসিয়াস লঙ্গিনাস অন্যতম। তার মৃত্যুর পরে, জেনোবিয়া হয়তো ভেবেছিলেন যে তার ছেলে, এমনকি তিনি নিজেও, রোম শাসন করতে পারেন এবং তাই তার স্বামীর রাজত্ব অব্যাহত রেখেছিলেন যেভাবে তিনি এটি পরিচালনা করেছিলেন। তিনি রোমের সাথে সংঘাত না দেখাতে সতর্ক ছিলেন। মিশর পাওয়ার পর, তিনি লেভান্ট ও এশিয়া মাইনর অঞ্চলের সাথে কূটনৈতিক আলোচনায় প্রবেশ করেন এবং সেগুলিকে তার ক্রমবর্ধমান সাম্রাজ্যে যুক্ত করেন। এটা স্পষ্ট যে তিনি রোমের বিরোধিতায় নিজের সাম্রাজ্য তৈরি করেছিলেন, তবুও তিনি সাম্রাজ্যের সাথে প্রকাশ্য বিরোধের জন্য কিছুই করেননি। তিনি বাণিজ্য চুক্তিও পরিচালনা করেছিলেন, সাসানিড পার্সিয়ানদের সাথে আলোচনা করেছিলেন রোমের সাথে পরামর্শ না করে।
রানী জেনোবিয়ার প্রতিকৃতি। Image Source: aeroarthic.com
২৭১ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে জেনোবিয়া একটি বিশাল সাম্রাজ্য গড়ে তোলেন যা আধুনিক ইরাক থেকে তুরস্ক এবং মিশরের মধ্য দিয়ে বিস্তৃত ছিল। অন্যান্য সম্রাটরা জেনোবিয়া কী করছে তা লক্ষ্য করতে ব্যর্থ হয়েছিল, বা সেই সম্পর্কে কিছু করার মতো সম্পদও হয়ত তাদের ছিল না, কিন্তু অরেলিয়ান একেবারেই ভিন্ন ধরনের শাসক ছিলেন। তিনি ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দিয়ে দূত পাঠাননি বা জেনোবিয়ার নিজের থেকে একটি প্রস্তাব দেওয়ার জন্য অপেক্ষা করেননি; তিনি তার সমগ্র সেনাবাহিনী নিয়ে পালমিরিন সাম্রাজ্যের দিকে অগ্রসর হন। ২৭২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ইমাই-এর যুদ্ধে ড্যাফনি শহরের বাইরে দুটি সেনাবাহিনী মিলিত হয়েছিল। জেনোবিয়া, যুদ্ধের একপর্যায়ে তার জেনারেল জাবদাসের সাথে এমেসা শহরে পালিয়ে যায়। যেখানে তার আরও সৈন্য ছিল এবং তারা কোষাগারও সঞ্চয় করেছিল। অরেলিয়ান কিন্তু বসে থাকার পাত্র না, সেও পাল্টা ধাওয়া করে রাণী ও তার বাহিনীকে। অবশেষে পালমিরিয়ান বাহিনী ধ্বংস হয়ে যায়। অরেলিয়ান শহরটি দখল করে নেয় এবং কোষাগার লুণ্ঠন করে। জেনোবিয়া অবশ্য আবার পালিয়ে গিয়েছিল। তিনি পালমিরা গিয়েছিলেন যেখানে তিনি শহরটিকে প্রতিরক্ষার জন্য প্রস্তুত করেছিলেন।
অরেলিয়ান যখন পালমিরায় প্রবেশ করেন এবং জেনোবিয়াকে আবার পালাতে দেখেন, তখন তিনি তাকে ধরতে অশ্বারোহী বাহিনী পাঠান। ইউফ্রেটিস নদী পার হওয়ার চেষ্টা করার সময় জেনোবিয়াকে বন্দী করা হয়। ক্যাসিয়াস লঙ্গিনাসকে দ্রুত মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। আর জেনোবিয়াকে রোমে ফিরিয়ে আনা হয়। এরপর জেনোবিয়া এবং তার ছেলেকে রোমে ফেরত নিয়ে যাওয়ার সময় বসফরাসে তারা ডুবে যায়। আবার এরকম দাবিও শুনা যায় যে তিনি তার ছেলেকে ছাড়াই রোমে পৌঁছেছিলেন, তাকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়েছিল এবং খালাস দেয়া হয়েছিল। তারপরে তিনি একটি ভিলায় থাকতেন এবং অবশেষে একজন রোমানকে বিয়ে করেন। জেনোবিয়া মধ্যযুগের কিংবদন্তীতে প্রাচীন বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠেন একজন মহান যোদ্ধা-রানী এবং চতুর শাসক হিসাবে। এমনকি পরের রাজারা যেমন রাশিয়ার ক্যাথরিন দ্য গ্রেট নিজেকে জেনোবিয়ার সাথে এবং তার দরবারকে পালমিরার সাথে তুলনা করেছিলেন। পালমিরার এই রাণীকে আজ পর্যন্ত রোমের সবচেয়ে সম্মানিত এবং যোগ্য প্রতিপক্ষ হিসেবে মনে করা হয়।

লেডি অফ কাও

প্রত্নতত্ত্বের জগতে সাম্প্রতিক আশ্চর্যজনক আবিষ্কারগুলির মধ্যে একটি হল পেরুর লেডি অফ কাওর মমি, যা কাওর সেনোরা নামেও পরিচিত। মজার বিষয় হল তিনি এমন একজন মমি যাকে কখনও মমি করা হয়নি। তিনি মোচে সভ্যতা নামে পরিচিত প্রাক-ইনকান সভ্যতার অধিবাসী ছিলেন। এই সভ্যতা বা সংস্কৃতি সম্পর্কে এখনও তেমন কিছু জানা যায় নি। পেরুর উত্তর উপকূলে ট্রুজিলো শহর থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার (৩৬ মাইল) দূরে এল ব্রুজো প্রত্নতাত্ত্বিক কমপ্লেক্সের মধ্যে কাও ভিয়েজো মন্দিরে একটি চমৎকার সমাধিতে প্রায় ১৭০০ বছর ধরে, অর্ধ-ঐশ্বরিক ক্ষমতার অধিকারী এই মহিলার দেহাবশেষ লুকিয়ে ছিল। তাকে সেখানে তার সম্পদ ও গহনা সহ আরও পাঁচজন ব্যক্তির সাথে ২৭৫ বর্গ মিটার (প্রায় ৩০০০ বর্গফুট) আকারের একটি কক্ষে সমাধিস্থ করা হয়েছিল, সেই ৫ জন ব্যক্তির মধ্যে ছিলো দুই পুরোহিত, দুই দেহরক্ষী এবং একজন কিশোরী মেয়ে৷ কবরটিতে দুটি যুদ্ধ ক্লাব এবং ২৩টি বর্শা নিক্ষেপকারী ছিল। যখন তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার জিনিসগুলো থেকে মৃতদেহ সরানো হয়েছিল, তখন প্রত্নতাত্ত্বিকদের কেউই অনুমান করতে সক্ষম হননি যে আশেপাশের ২৫টি সূক্ষ্ম কাপড়, তুলা এবং তামার প্লেটের মধ্যে আবদ্ধ ব্যক্তিটি একজন মহিলা। লেডি অফ কাওর সমাধিস্থল হুয়াকা এল ব্রুজো উইজার্ডের পাহাড় নামেও পরিচিত। হুয়াকা এল ব্রুজো সমস্ত প্রত্নতাত্ত্বিকদের জন্য একটি বিস্ময় ছিল কারণ ধারণা করা হয়েছিল যে সেখানে শুধুমাত্র পুরুষদের কবর দেওয়া হয়েছিল। তাই সেখানে একটি মহিলা মমি খুঁজে পাওয়া কোনোভাবেই প্রত্যাশিত ছিল না। তিনি বিশের দশকের মাঝামাঝি সময়ে মারা গিয়েছিলেন। বিভিন্ন জটিলতায় প্রসবের সময় তার মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

লেডি অফ কাও-এর বাহু ও হাতে সজ্জিত ছিল কিছু দুর্দান্ত উল্কি। একটি হল সাপের মূর্তি যা ছিলো তার ধর্মীয় শক্তির চিহ্ন। তিনি যেকোনো রোগ নিরাময় করতে পারতেন তার ইঙ্গিত। আরেকটি উল্কি তিনি আঁকিয়েছিলেন মাকড়সার মতো দেখতে। এটি প্রকাশ করতো তিনি খুব ভালো বুনন করতে পারতেন তা। লেডি অফ কাওর ত্বকে সাপ, বিচ্ছু এবং কাঁকড়া সহ বিভিন্ন প্রাণীর যে ট্যাটু ছিল, যার সবকটিই মোচে সংস্কৃতির দেবত্বের সাথে সম্পর্কিত। তাই এটি থেকে, প্রত্নতত্ত্ববিদগণ অনুমান করেছিলেন যে তিনি খুবই সম্মানজনক একজন রানী ছিলেন। তিনি প্রাচীন পেরুর চিকামা উপত্যকায় শাসন করেছিলেন। কাওর ট্যাটুগুলি একটি অভিজাত মানের প্রতিনিধিত্ব করে কারণ ট্যাটুগুলি মোচে সমাজ জুড়ে পাওয়া আধ্যাত্মিক প্রতীকবাদের সাথে যুক্ত। কবরস্থানে তার সঙ্গে আরেক যে তরুণীর মৃতদেহ পাওয়া যায় তাকে মানব বলি দেয়া হয়েছিল বলে সকলের বিশ্বাস।

লেডি কাওর মমি(বামে) ও তার সম্পূর্ণ প্রতিকৃতি (ডানে)। Image Source: faro.com

এটি খুব কঠিন একটি প্রজেক্ট ছিল কারণ লেডি অফ কাওকে কখনই সঠিকভাবে মমি করা হয়নি, তাই তার শরীর ক্ষয় হয়ে গিয়েছিল৷ পেরুর শুষ্ক অবস্থা তাকে ভালোভাবে সংরক্ষণ করেছে ঠিকই, কিন্তু পুরোপুরি নয়। তার হাড়ের উপর তার চামড়া শুকিয়ে গিয়েছিল, ট্যাটুও অন্তর্ভুক্ত ছিল। প্রত্নতাত্ত্বিকরা এই ট্যাটুগুলি সংরক্ষণ করতে চেয়েছিলেন। তাই, স্বাভাবিক মাটির নির্মাণের পরিবর্তে, তারা পুনর্গঠনের জন্য অন্য পথ গ্রহণ করে। সেই পথে, অনেক সমস্যা দেখা দেয়। তার খুলির নাক সম্পূর্ণরূপে ক্ষয়প্রাপ্ত হয়েছিল, ঠোঁট ভিতরের দিকে সরে গিয়েছিল, তার চোখ এবং চোখের পাতা ডুবে গিয়েছিল। বিজ্ঞানীরা নির্মাণটি সম্পূর্ণ করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পেরুর নাগরিকদের ফটোগ্রাফ (যারা মোচে সংস্কৃতি থেকে এসেছে) বিবেচনা করা শুরু করে। একইসাথে মন্দিরের অঙ্কন থেকে এবং সেই এলাকায় বসবাসকারী কিছু লোকের কাছ থেকে ইঙ্গিত নেয়া শুরু করে যারা সেই সভ্যতার সাথে যুক্ত।

মোচে সংস্কৃতি সম্পর্কে খুব বেশি কিছু বর্তমান যুগে পাওয়া যায় না। লেডি অফ কাওর মমি একটি গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার ছিল কারণ তিনি সেই সংস্কৃতির একটি উল্লেখযোগ্য ধারণা দিয়েছেন৷ এটি পূর্বে বিশ্বাস করা হত যে এই হিংস্র এবং আবেগপ্রবণ সংস্কৃতিটি একটি পুরুষ শাসিত সমাজ৷ কিন্তু লেডি অফ কাওর আবিষ্কার হল প্রথম মহিলা যাকে তার ট্যাটু সহ উল্লেখযোগ্য দাফনের আচার-অনুষ্ঠান পাওয়া গেছে। এটি আমাদের বুঝতে সাহায্য করে যে তিনি হয়তো একজন উচ্চ-পুরোহিত ছিলেন৷ আজ পেরুর যুবতী মহিলা এবং বিশ্বের অন্য নারীরা লেডি অফ কাও থেকে অনুপ্রেরণা পান এবং তার মতো একজন নেতা, একজন শক্তিশালী নারী হওয়ার স্বপ্ন দেখেন। তিনি কে ছিলেন এবং তার নাম কী ছিল, সবই এখনও রহস্য, তবে পেরু সর্বদা তার দিকে তাকিয়ে থাকবে এবং তাকে সেনোরা ডি কাও হিসাবে মনে রাখবে।

এই ৫ জন নারী শাসক তাদের দুঃসাহসিক কাজ, দূরদর্শী পরিকল্পনা ও প্রতাপশালী রাজ্য পরিচালনার জন্য ইতিহাসের পাতায় দৃঢ়ভাবে স্থান গেড়েছেন। যতদিন পৃথিবী থাকবে, পৃথিবীতে মানুষ থাকবে ততদিন তারা তাদের অবিশ্বাস্য কীর্তির জন্য স্মরনীয় থাকবেন।

 

Feature Image: deviant art
References:
1. Cleopatra.
2. Meet Zenobia — The Warrior Queen Of The Middle East.
3. Lady of Cao: A Powerful Woman Who Changed History.
4. Who Is the Queen of Sheba in the Bible?
5. Who was Hatshepsut?
6. Zenobia, queen of Palmyra.

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
নুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!