ম্যাকডোনাল্ডসের জনপ্রিয়তার পেছনের গল্প

159
0

ম্যাকডোনাল্ডস, বিশ্বের জনপ্রিয় আমেরিকান ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে একটি। ১০০টিরও বেশি দেশে ৩০ হাজারেরও বেশি রেস্তোরাঁ পরিচালনা করে। ম্যাকডোনাল্ডস যথার্থই বিশ্বের সবচেয়ে সফল রেস্তোরাঁ। কিন্তু, কীভাবে এই সফলতা আর জনপ্রিয়তা অর্জন করলো ম্যাকডোনাল্ডস? আজ ম্যাকডোনাল্ডসের জনপ্রিয়তার পেছনের গল্প নিয়েই মূল আলোচনা।

শুরুর গল্প

ডিক এবং ম্যাক ম্যাকডোনাল্ড দুই ভাই নতুন সুযোগের খোঁজে ব্রিটেন থেকে ক্যালিফোর্নিয়া চলে আসেন। সিনেমা ব্যবসায় ব্যর্থ হয়ে, তারা পরবর্তীতে ড্রাইভ-ইন রেস্তোরাঁ পরিচালনায় সফল হন। ১৯৪৮ সালে, তারা ১৫ সেন্টের হ্যামবার্গার সমন্বিত একটি স্পিডি সার্ভিস সিস্টেম চালু করার ঝুঁকি নেন।

এই সাফল্য তাদের ধারণা ফ্র্যাঞ্চাইজ করার সুযোগ দেয় এবং নয়টি রেস্তোরাঁ চালু হয়। তারা মোট ১৪টি ফ্র্যাঞ্চাইজি বিক্রি করে, যার মধ্যে বার্নার্ডিনোতে তাদের অরিজিনাল অবস্থানসহ ১০টি অপারেটিং রেস্তোরাঁয় পরিণত হয়। 

সান বার্নার্ডিনোতে ম্যাকডোনাল্ড ভাইদের রেস্তোরাঁ ১৯৪৮-১৯৫৫ Image source: McDonald’s Website

ম্যাকডোনাল্ডস কানাডা এবং পুয়ের্তো রিকোতে ১৯৬৭ সালে যাত্রা শুরু করে আন্তর্জাতিক বাজারে যুক্ত হয়। তাদের আরেকটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত ছিল, স্নায়ু যুদ্ধের শেষের দিকে মস্কোর পুশকিন স্কোয়ারে রেস্তোরাঁ চালু করা। 

ম্যাকডোনাল্ডস ভাইদের ইচ্ছে ছিল যে, তাদের স্থপতি একটি আকর্ষণীয় বিল্ডিং ডিজাইন করুক, যা তাদের স্পিডি সার্ভিস সিস্টেমকে হাইলাইট করবে। লাল এবং সাদা বিল্ডিংটির স্থপতি স্ট্যানলি মেসন তাদের হতাশ করেননি। 

একজন সাইন মেকার এর মধ্যে হলুদ নিয়ন যুক্ত করে বিখ্যাত “গোল্ডেন আর্চ” তৈরি করে বর্তমানের আইকনিক বিল্ডিংয়ে পরিণত করে।  

ম্যাকডোনাল্ডসের বিখ্যাত গোল্ডেন আর্চ Image source: Getty Images

রে ক্রোক

শিকাগোর এই বাসিন্দা, ১৯৫৪ সালে ম্যাকডোনাল্ডস ভাইদের সাথে দেখা করে তাদের ফ্র্যাঞ্চাইজির এজেন্ট হন। ১৯৫৫ সালে, ক্রোক মিসিসিপি নদীর পূর্বে তিনি প্রথম ম্যাকডোনাল্ডসের একটি আউটলেট শুরু করেন।  ম্যাকডোনাল্ডসের জনপ্রিয়তার পিছনে ক্রোকের ভূমিকা অপরিসীম। 

রে ক্রোকের তৈরি প্রথম ম্যাকডোনাল্ডস রেস্তোরাঁ Image source: McDonald’s Website

একটি ব্যবসায়িক মডেল প্রতিষ্ঠা করা

ক্রোক ধারাবাহিকভাবে সর্বোচ্চ মানের এবং অভিন্ন পদ্ধতির প্রস্তুতিকে অগ্রাধিকার দিতে চেয়েছিলেন, যাতে আউটলেট যেখানেই হোক না কেন খাবারের স্বাদ একই রকম হয়। তিনি এমন একটি পদ্ধতি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন যেখানে অপারেটিং সিস্টেমের জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর; ম্যাকডোনাল্ডসের কোয়ালিটি, সার্ভিস এবং মানের মূল নীতিগুলো অনুসরণের প্রয়োজন হয়। এর জন্য তিনি ১৯৫৫ সালে ম্যাকডোনাল্ডস সিস্টেম, ইনকর্পোরেটেড প্রতিষ্ঠা করেন। 

ম্যাকডোনাল্ডসের কৌশল

বিজ্ঞাপন, ফ্র্যাঞ্চাইজিং এবং ধারাবাহিক উদ্ভাবনের উপর দৃষ্টি রেখে, ম্যাকডোনাল্ডস একটি কার্যকর ব্যবসায়িক মডেলের কৌশল তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিল। 

তারা ম্যাকডোনাল্ডসকে, পরিবারের সাথে সময় কাটানোর জন্য একটি মজার জায়গা হিসাবে ব্র্যান্ডিং করে বিজ্ঞাপন তৈরি করে। তাদের মাসকট রোনাল্ড ম্যাকডোনাল্ডকে, তরুণ গ্রাহকদের আগ্রহ তৈরির জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল। একই সাথে তারা চলমান ট্রেন্ড থেকে এগিয়ে থাকতো সবসময়। যেমন ১৯৭০-এর দশকে বিশ্বায়নের প্রভাব, স্থানীয় উদ্যোক্তাদের ফ্র্যাঞ্চাইজ করা এবং ম্যাকডোনাল্ডসকে আমেরিকা ছাড়াও অন্যান্য স্থানে ছড়িয়ে দেওয়া ইত্যাদি। একই সাথে, কম সময়ে সহজে খাবার পরিবেশন এবং স্বাস্থ্যকর খাবারের অপশন রাখা, তাদের অন্যদের থেকে ভিন্ন অবস্থানে প্রতিষ্ঠিত করেছিল। 

ম্যাকডোনাল্ডস রাতারাতি বিশ্বের সবচেয়ে লাভজনক ফ্র্যাঞ্চাইজিতে পরিণত হয়েছিল। এই সফলতার ইতিহাসে আছে বেশ কিছু উপাদান, যা এই ব্র্যান্ডের বৃদ্ধিকে আজকের এই পর্যায়ে নিয়ে এনেছে। 

ধারাবাহিকতা

ধারাবাহিক মেনু সিস্টেম এবং রিটেইলের ধারণা, ম্যাকডোনাল্ডসের ইউএসপিতে পরিণত হয়েছিল। যা তাদের প্রত্যেক রেস্তোরাঁয় এক পরিচিত অনুভূতি জাগিয়ে তোলে, তা বিশ্বের যেখানেই থাকুক না কেন। ফ্র্যাঞ্চাইজিকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে একই রেসিপিতে খাবার তৈরি এবং তার চিন্তা অনুযায়ী রেস্তোঁরাগুলো পরিচালনা করার জন্য, রে ক্রোক একটি হ্যামবার্গার ইউনিভার্সিটিও তৈরি করেছিলেন। 

রে ক্রোকের হ্যামবার্গার ইউনিভার্সিটি Image source: braingainmag.com

উদ্ভাবন

ধারাবাহিকতা বজায় রাখার সাথে সাথে, ম্যাকডোনাল্ডস ক্রমাগত উদ্ভাবনের মাধ্যমে গ্রাহকদের ধরে  রাখতে সক্ষম হয়েছিল। গ্রাহকের প্রবণতা এবং আচরণ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে ম্যাকডোনাল্ডসের আইকনিক মেনু আইটেমগুলো তৈরি হয়েছিল। হ্যাপি মিল থেকে শুরু করে বিগ ম্যাক, এমনকি ম্যাকফ্লারি পর্যন্ত ম্যাকডোনাল্ডসের পণ্যগুলোর অফারের পরিসর বাড়ানোর জন্য এগুলো ফ্র্যাঞ্চাইজির মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছিল। 

বিগ ম্যাক Image source: Getty Images

স্থানীয়করণ তাদের উদ্ভাবনের আরেকটি মূল উপাদান। স্থানীয়দের রুচির জন্য সীমিত সময়ের মেনু আইটেম, গ্রাহকদের তাদের রেস্তোরাঁয় বারবার ফিরে যেতে অনুপ্রাণিত করে। তাছাড়া, এটি একটি অনন্য অভিজ্ঞতা দেয় যা আপনি শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট দেশেই পেতে পারেন, এইভাবে পর্যটকদের আগ্রহও বৃদ্ধি পায়। 

প্রযুক্তির ব্যবহার

দক্ষতা এবং সুবিধা বাড়াতে প্রযুক্তির ব্যবহারে, ম্যাকডোনাল্ডস দ্রুত-সার্ভিস চেইনগুলোর মধ্যে প্রথম। সেলফ-সার্ভিস কিয়স্ক এবং ডিজিটাল মেনু বোর্ডের বিকাশ থেকে শুরু করে, ম্যাকডোনাল্ডস সবসময় প্রযুক্তি ব্যবহারে এগিয়ে। 

কিয়স্কের মাধ্যমে অর্ডার। Image Source: wallstreetjournal.com

ম্যাকডোনাল্ডস ফ্র্যাঞ্চাইজির নতুন এইচআর প্রযুক্তি গ্রহণ করেছে, বিশেষ করে যা মহামারীর সময় নানাভাবে কাজে লেগেছে। ম্যাকডোনাল্ডসের মালিক-অপারেটর অ্যালিসা মোটেন, ওয়ার্কস্ট্রিমের সাথে তার নিয়োগের প্রক্রিয়াটিকে নতুনভাবে তৈরি করেন। টেক্সট মেসেজিং, হায়ার অটোমেশন, এবং টেলিকনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে, তিনি সম্পূর্ণ যোগাযোগহীন পদ্ধতিতে নতুন নিয়োগ প্রদান করতে সক্ষম। 

নিয়োগ ছাড়াও, ম্যাকডোনাল্ডসের আরেকটি বৃহৎ পরিবর্তন হলো কোম্পানি ডায়নামিক ইয়েল্ড। একটি কাস্টমাইজড ড্রাইভ-থ্রু, যা মেনুর সাথে বর্তমান আবহাওয়া, রেস্তোরাঁর ট্র্যাফিক এবং ট্রেন্ডিং আইটেমগুলোর মতো জিনিসের জন্য তৈরি করা যেতে পারে। অর্ডার প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পরে, ডিসপ্লেতে আপনার বর্তমান নির্বাচনের উপর ভিত্তি করে অতিরিক্ত আইটেম সুপারিশ করার ক্ষমতাও রয়েছে। বিশ্বব্যাপী, ম্যাকডোনাল্ডস নির্দিষ্ট কিছু দেশে তাদের প্রথম ভয়েস-ইনিশিয়েটেড অ্যাপ্লিকেশন প্রক্রিয়াও (অ্যাপ্লাই থ্রু) অন্তর্ভুক্ত করা শুরু করেছে। 

মহামারীতে মানিয়ে নেওয়া

সাম্প্রতিক বৈশ্বিক মহামারীর ফলস্বরূপ, ম্যাকডোনাল্ডসকে তাদের বর্তমান নীতিগুলোকে পুনরায় বিবেচনা করা হয়; সরকারি নির্দেশিকা অনুযায়ী পরিবর্তন করতে হয়। মহামারীর সংকটের সময়, তারা গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে ৪০০,০০ মাস্ক প্রদান করে এবং প্রতিটি কর্পোরেট মালিকানাধীন রেস্তোরাঁর কর্মচারীকে তাদের বেতনের ১০% এর সমতুল্য দেওয়া হয়। 

নতুন স্টোর পুনরায় খোলার সময়, তারা নতুন পরিচ্ছন্নতার বিধি প্রয়োগ, সামাজিক দূরত্বের স্টিকার ব্যবহার এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষামূলক সরঞ্জাম ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছে। সেল্ফ-সার্ভ বেভারেজ বারগুলো বন্ধ ছিল পূর্বে এবং ড্রাইভ-থ্রুতে প্রতিরক্ষামূলক প্যানেল ইনস্টল করা হয়েছিল। তাদের সমস্ত কর্মীদের মাস্ক এবং গ্লাভস পরিধান বাধ্যতামূলক। কার্যক্রম সহজ করার জন্য, তারা তাদের মেনু অফারগুলোতে সবচেয়ে জনপ্রিয় আইটেমগুলো কমিয়ে দিয়েছে। এবং মূল্যের ক্ষেত্রে তারা ক্রেতার সামর্থ্যের দিকও বিবেচনা করেছে। 

ম্যাকডোনাল্ডস এর ভবিষ্যত

লন্ডনে, ম্যাকডোনাল্ডস একটি টু-গো ব্যবস্থা চালু করেছে যেখানে শুধুমাত্র ক্লাসিক আইটেমগুলো স্ট্রিমলাইন করা হয়েছে, এবং সমস্ত অর্ডার কিওস্কের মাধ্যমে করা হয়। এটি কর্মীদের অর্ডার প্রস্তুত করার দিকে মনোযোগের সাথে সাথে, গ্রাহকের কাছে খাবার সরবরাহের গতিও বাড়িয়ে দেয়। 

ম্যাকডোনাল্ডস ২০৩০ সালের মধ্যে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন ৩৫% কমানোর পরিকল্পনা ঘোষণা করে। “ম্যাকক্যাফে সাসটেইনেবল কফি,” সাসটেইনেবল সোর্সিং সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে তৈরি করা আরেকটি উদ্যোগ। 

ম্যাকডোনাল্ডসের আজকের জনপ্রিয়তার কৃতিত্ব মূলত এর ফ্র্যাঞ্চাইজিং মডেল, ধারাবাহিকতা এবং উদ্ভাবনের জন্য। তাদের ফ্র্যাঞ্চাইজিং মডেল তাদের ইউএসপি হিসাবে পরিণত হয়। একই সাথে, বিশ্বব্যাপী তাদের আউটলেটগুলোতে গ্রাহকের একই অভিজ্ঞতা এবং উদ্ভাবন, তাদের ক্রমাগত নতুন পর্যায়ে পৌঁছাতে সাহায্য করেছে। 

Feature Image: livekindly.com

তথ্যসূত্রসমূহ:

  1. Who-we-are/our-history
  2. History-of-McDonalds
  3. Why-mcdonalds-most-profitable-franchises?

 

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
নুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!