বার্লিন: বিচ্ছেদ ও মিলনের এক আর্দশ প্রতীক

729
0

কখনো কি শুনেছেন এক শহরের মাঝেই দুটি আদর্শের কারণে গড়ে উঠেছিল দাম্ভিকতার দেয়াল? মায়ের কাছ থেকে সন্তান, ভাইয়ের কাছ থেকে বোন, স্বামীর কাছ থেকে স্ত্রী, এইভাবেই প্রিয়জনদের মাঝেও গড়ে উঠেছিল সীমানা প্রাচীর। তবে জানেন কি এই প্রাচীর ভাঙ্গার মধ্য দিয়েই বদলে গিয়েছিল পুরো বিশ্বের চেহারা। ঠিকই ধরেছেন, বার্লিন প্রাচীরের কথাই বলছি! তবে আজকের আলোচনাটা কংক্রিটের দেয়াল নিয়ে নয়; বরং নিজের জীবদ্দশায় নিজেকে দুই ভাগে বিভক্ত হতে দেখা শহর বার্লিনকে নিয়ে।

বার্লিন বর্তমান জার্মানির রাজধানী এবং অন্যতম প্রধান নগর। বার্লিন উত্তর জার্মানিতে অবস্থিত। ভৌগলিক ও বাণিজ্যিক নানান সুবিধার কারণে প্রুশিয়া রাজ্যের রাজধানী এবং পরে ১৮৭১ সাল থেকে একীভূত জার্মানির রাজধানী হয়ে উঠে এই শহর। দ্বিতীয় যুদ্ধের সময় বার্লিন তার আগের গৌরব প্রায় হারিয়ে বসে। তারপরও পরবর্তীতে এটি রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সবদিক দিয়েই সারা পৃথিবীর শহরগুলোর মাঝে গুরুত্বপূর্ণ শহরের একটি হয়ে উঠে আজকের বার্লিন।

অবস্থান

বার্লিন স্প্রী নদীর প্রশস্ত হিমবাহ উপত্যকায় অবস্থিত, যা শহরের অনেকটাই  কেন্দ্রের মধ্য দিয়ে বয়ে চলেছে। বার্লিন বাল্টিক সাগরের প্রায় ১১২ মাইল (১৮০ কিমি) দক্ষিণে, চেক-জার্মান সীমান্তের ১১৮ মাইল (১৯০ কিমি) উত্তরে, পূর্বের অভ্যন্তরীণ-জার্মান সীমান্তের ১১০ মাইল (১৭৭ কিমি) পূর্বে এবং ৫৫ মাইল (৮৯) দূরে অবস্থিত কিমি) পোল্যান্ডের পশ্চিমে অবস্থিত। বার্লিনের গড় উচ্চতা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১১৫ ফুট (৩৫ মিটার)। বার্লিনের সবচেয়ে উঁচু স্থান হল ক্রুজবার্গের চূড়া,এটি একটি পাহাড় যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২১৮ ফুট (৬৬ মিটার) উপরে।

brown concrete building during daytime
বার্লিনের ঐতিহাসিক বার্ডেনবার্গ গেইট। image source: unsplash.com/Florian Wehde

বার্লিনের যাত্রা এবং মধ্যযুগ

বার্লিন শহরের কথা প্রথম উল্লেখ পাওয়া যায় ১২৩৭ সালে। শুরুর দিকে এটি ছোট শহর হিসেবে গড়ে উঠেছিল। অনেকটা বর্তমান মফস্বল শহরগুলোর মতোই। প্রধানত শিকারী, জেলে এবং ব্যবসায়ীরা এখানে বাস করতো। ত্রয়োদশ থেকে পঞ্চদশ শতাব্দী পর্যন্ত এখানকার অধিবাসীরা তুলনামূলকভাবে স্বাধীন জীবনযাপন করতো।

১৪১৫ সালে, হোহেনজোলারন পরিবারের সদস্যরা ব্র্যান্ডেনবার্গ শাসন করা শুরু করে; যারা ১৯১৮ সাল পর্যন্ত বার্লিনের উপর শাসন করেছিল। পঞ্চদশ শতাব্দীর শেষে, বার্লিনকে ব্র্যান্ডেনবার্গের রাজধানী করা হয়। ষোড়শ শতাব্দীতে, বার্লিনে বুবোনিক প্লেগ মারাত্মক প্রভাব ফেলেছিল। যার ফলে প্রায় ৬০০০ লোক মারা গিয়েছিল।

প্রোটেস্ট্যান্ট সংস্কার এবং প্রুশিয়ান রাজ্য

১৫১৭ সালে মার্টিন লুথার প্রোটেস্ট্যান্ট সংস্কারের সূচনা করেছিল। যা জার্মান জনসংখ্যার একটি বড় অংশকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করেছিল। ফলত সংস্কারের পক্ষ এবং বিরোধীদের মধ্যে দীর্ঘকাল রাজনৈতিক অস্থিরতা দেখা দেয়। এই সংস্কারকে কেন্দ্র করে দেখা দেয় অর্থনৈতিক সঙ্কট যা প্রায় দেড় শতাব্দী যাবত স্থায়ী হয়। ষোড়শ শতাব্দীতে, দেশে খাদ্যমূল্য বেড়ে যায় এবং অনেক মানুষকে দরিদ্র করে তোলে।

অবশেষে, সপ্তদশ শতাব্দীতে দাম কমতে শুরু করে। বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় প্রোটেস্ট্যান্ট এবং ক্যাথলিক রাজ্যের মধ্যে ত্রিশ বছরের যুদ্ধ (১৬১৬- ১৬৪৮) হয়। যার ফলে বার্লিনের এক তৃতীয়াংশ অংশ ধ্বংস হয়ে যায় এবং জনসংখ্যা প্রায় অর্ধেকে নেমে আসে। শহরটির উত্থান হয় সপ্তদশ শতাব্দীর শেষে এবং অষ্টাদশ শতাব্দীতে সমৃদ্ধ হতে শুরু করে। ধীরে ধীরে তা ইউরোপের অন্যতম সুন্দর রাজধানী শহর হয়ে ওঠে। সেই মহিমাকে ধরে রাখতেই ১৭৮৮ সালে, ব্র্যান্ডেনবার্গ গেট নির্মাণ করা হয়।

green and brown dome building
দৃষ্টিনন্দন বার্লিন ক্যাথেড্রাল। image source: unsplash.com/Alexandre Barbosa

বার্লিন, প্রুশিয়ার রাজধানী

ইলেক্টর তৃতীয় ফ্রেডরিক বার্লিনকে প্রুশিয়া রাজ্যের রাজধানী করেছিল। ১৮০৬ সালে, নেপোলিয়ন বার্লিনে যাত্রা করেন। নেপোলিয়নের যাত্রা জনগণকে একটি জাতীয়তাবাদী আন্দোলন তৈরি করতে উদ্বুদ্ধ করে। রাজধানী বার্লিন হয়ে উঠে অস্থির। ১৬৭১ সালে জার্মান রাজ্যগুলি ফ্রাঙ্কো-প্রুশিয়ান যুদ্ধে ফরাসি সৈন্যদের পরাজিত করে এবং জার্মান সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হয়। ব্র্যান্ডেনবার্গ ফেডারেল রাজ্য আবার প্রুশিয়া দ্বারা শাসিত হয়। বার্লিন নতুন প্রুশিয়ান সাম্রাজ্যের রাজধানী হয়ে ওঠে।

সাম্রাজ্যের রাজধানী হিসাবে বার্লিনের গুরুত্ব তখন বৃদ্ধি পেয়েছিল। এবং এর জনসংখ্যা ১৮৭১ সালে ৮,২৫,০০০ থেকে ১৯০০ সালে প্রায় ২০,০০,০০০ এবং ১৯২৫ সালে ৪০,০০,০০০ এ উন্নীত হয়। শহরটি বিশ্বব্যাপী সাংস্কৃতিক, স্থাপত্য এবং আর্থিক ব্যবস্থার অন্যতম কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়।

ইতিমধ্যে আফ্রিকা ও এশিয়ায় সাম্রাজ্যের কারণে ফ্রান্স একটি শক্তিশালী জাতি হিসেবে উত্থান শুরু করে। উভয় দেশই আরেকটি ফ্রাঙ্কো-প্রুশিয়ান যুদ্ধের সম্ভাবনা নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিল এবং তাদের পক্ষে যতটা সম্ভব মিত্রতা বজায় রাখার চেষ্টা করেছিল। এইভাবে, মহাদেশটি একদিকে ট্রিপল এন্টেন্টে (ফ্রান্স, রাশিয়া এবং গ্রেট ব্রিটেন) এবং অন্যদিকে ট্রিপল অ্যালায়েন্স (জার্মানি, ইতালি এবং অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরি) সহ দুটি বৈরী জোটে বিভক্ত হয়েছিল। উভয় জোটের মধ্যে শত্রুতা ছিল বিশ্বযুদ্ধের অভ্যুত্থানের সবচেয়ে বড় কারণ।

শারলেটনবার্গ। image source: unsplash.com/Rodrigo Sümmer

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সময়কালীন বার্লিন

১৯১৪ সালে অস্ট্রিয়ার আর্চডিউক ফ্রাঞ্জ ফার্ডিনান্ড নিহত হলে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়। ফলস্বরূপ, অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরি সার্বিয়া রাজ্যকে একটি আল্টিমেটাম দেয়। এই সময়েই মানবজাতি বিশ্বযুদ্ধের সাক্ষী হয়ে যায়। মিত্রশক্তি ১৯১৮ সালে জার্মানি এবং অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরিকে পরাজিত করে। ১১ নভেম্বর ১৯১৮ সালে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

১৯১৯ এবং ১৯৩৩ সালের মধ্যে, জার্মান রাষ্ট্রকে ওয়েমার প্রজাতন্ত্র মনোনীত করা হয়েছিল। ১৯৩৩ সালে, চ্যান্সেলর অ্যাডলফ হিটলারকে রাইখস্টাগের অনুমোদন ছাড়াই আইন কার্যকর করার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল সক্রিয়করণ আইনের সাথে, যা ওয়েমার প্রজাতন্ত্রকে শেষ করেছিল। বেশ কয়েক বছর পর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন বার্লিন শহরের একটি দুর্লভ চিত্র। Image Source: Getty Images/bbc.com

বার্লিন এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ

পহেলা সেপ্টেম্বর ১৯৩৯ জার্মানি পোল্যান্ড আক্রমণ করে এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ ঘোষণা করা হয়। ব্রিটিশ এবং আমেরিকান বিমান বোমা হামলার পাশাপাশি রাশিয়ান সেনাবাহিনীর অগ্রগতি দ্বারা বার্লিন পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়। ১৯৪৫ সালের ৪ মে জার্মানরা আত্মসমর্পণ করে।

নয় সপ্তাহ পরে, মিত্ররা (যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন) পটসডাম সম্মেলনে পরাজিত নাৎসি জার্মানি এবং অস্ট্রিয়ার সাথে কী করতে হবে তা সিদ্ধান্ত নিতে মিলিত হয়। দুটি দেশ এবং রাজধানীকে চারটি অঞ্চলে ভাগ করা হয় শেষমেশ। সেই আলোচনায় মিত্রবাহিনী পক্ষ থেকে পরাজিত দেশকে মিত্র দখল অঞ্চল নামে চারটি আলাদা ভাগে বিভক্ত করা হয়।

Soviet soldiers arrive in Berlin at the end of World War II
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কালীন বার্লিনের বিখ্যাত ব্রান্ডেনবার্গ গে। image source: picturce.alliance/dpa

বার্লিন অবরোধ এবং স্নায়ুযুদ্ধ 

সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৪৯ সালের ৭ অক্টোবর পূর্ব জার্মানি (জার্মান গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র) তৈরি করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের মধ্যে ভূ-রাজনৈতিক উত্তেজনার কারণে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত ১৯৯১ সাল পর্যন্ত শীতল যুদ্ধের উদ্ভব হয়েছিল। স্নায়ুযুদ্ধের সময়, পশ্চিম জার্মানি মস্কোর একীকরণের অসংখ্য প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিল কারণ তারা আপার সাইলেসিয়া, ফার্দার পোমেরেনিয়া এবং পূর্ব প্রুশিয়া ছেড়ে দিতে রাজি ছিল না।

১৯৪৮ সালের ২৪ জুন, সোভিয়েত ইউনিয়ন মিত্রদের পশ্চিমা নিয়ন্ত্রণাধীন শহরের সেক্টরগুলিতে প্রবেশ করতে বাধা দেয়। বার্লিন অবরোধ ছিল স্নায়ুযুদ্ধের প্রথম সংকটগুলির মধ্যে একটি। মিত্রশক্তিকে টেম্পেলহফ থেকে বিমানযোগে শহর সরবরাহ করতে বাধ্য করেছিল। অবশেষে, সোভিয়েত ইউনিয়ন ১২ মে ১৯৪৯ সালে জার্মানির বার্লিন ত্যাগ করে।

শিল্প ও বাণিজ্য

বার্লিন হলো জার্মানির বৃহত্তম শিল্প শহর এবং বাণিজ্য ও প্রযুক্তিগত উন্নয়নের অন্যতম প্রধান কেন্দ্র। ঐতিহ্যগত অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে ব্যাপকভাবে হ্রাস পেলেও বৃহত্তর বার্লিন জুড়ে পুনরুজ্জীবিত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে টেক্সটাইল শিল্প, ধাতু, পোশাক, চীনামাটির বাসন, বাইসাইকেল এবং যন্ত্রপাতি উৎপাদন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইলেকট্রনিক্স একটি প্রধান শিল্পে পরিণত হয়েছে বার্লিন শহরের। খাদ্য, রাসায়নিক, সিগারেট এবং মিষ্টান্ন উৎপাদনও অব্যাহত রয়েছে।

বার্লিনের পার্গামন যাদুঘরে সুমেরীয় সভ্যতার ইস্টার গেট। Image Source: inexhibit.com

বার্লিনের বিখ্যাত জাদুঘর

বার্লিন অনেক জাদুঘরের জন্য বিখ্যাত যেমন ডাহলেম মিউজিয়াম, মিশরীয় জাদুঘর, বার্লিন কালচারাল ফোরাম এবং নিউ ন্যাশনাল গ্যালারি এবং মিউজিয়াম অফ আর্টস অ্যান্ড ক্রাফ্টস। যুদ্ধোত্তর অন্যান্য জাদুঘর হল ব্রুক-মিউজিয়াম, বার্লিন মিউজিয়াম, মিউজিয়াম অফ ট্রান্সপোর্ট অ্যান্ড টেকনোলজি এবং ইহুদি জাদুঘর বার্লিন।

সাংস্কৃতিক জীবন

প্রাদেশিক রাজধানী থাকা অবস্থায় সাংস্কৃতিক গুরুত্বের দিক দিয়ে লন্ডন এবং প্যারিসের মতো শহরগুলির সরব ছিল না। ১৮ শ শতাব্দী থেকে এর সাংস্কৃতিক অবদান স্বতন্ত্র হয়ে ওঠে। বার্লিনকে উনিশ শতকের ‘স্প্রী-এথেন’ (‘এথেন্স অন দ্য স্প্রী’) বললে অতিরঞ্জিত বলে মনে হলেও, স্থাপত্য, শিল্প ও বিজ্ঞানে বার্লিনবাসীদের অবদান অসামান্য। ১৭৫০ সালের মধ্যে আন্টার ডেন লিন্ডেনের প্রুশিয়ান স্টেট অপেরাকে ইউরোপের সেরা অপেরা হাউসগুলির মধ্যে অন্যতম সেরা মনে করতেন। বাদ্যযন্ত্রের বার্লিনের সুনাম রয়েছে।

বার্লিন প্রাচীর বার্লিনের বিভাজন

১৯৪৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তি হওয়ার সাথে সাথে ইয়াল্টা এবং পটসডামে মিত্র শান্তি সম্মেলন জার্মানির অঞ্চলগুলির ভাগ্য নির্ধারণ করেছিল। তারা পরাজিত জাতিকে চারটি “মিত্র দখলদার অঞ্চল”-এ বিভক্ত করেছিল: দেশটির পূর্বাঞ্চল চলে যায় বৃহত্তর রাশিয়া বা সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছে; পশ্চিম অংশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেট বৃটেন এবং (এমনকি) ফ্রান্সের কাছে ছিল। এবং বার্লিন শহর তথা পুরো জার্মানি দুইভাগে বিভক্ত হয়ে যায়।

যদিও মূল কেন্দ্র বা রাজধানী বার্লিন সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশেই পড়েছিল (এটি পূর্ব ও পশ্চিম দখল অঞ্চলগুলির সীমানা থেকে প্রায় ১০০ মাইল দূরে অবস্থিত ছিল)। ১৯৪৫ সালের জুন মাস থেকেই বার্লিনের এই চার-পথ দখল ব্যবস্থা চালু হয়েছিল। বার্লিনকে বিভাগ করতে একটা প্রাচীর গড়ে তোলা হয়েছিল যা ইতিহাসে বার্লিন প্রাচীর নামে পরিচিত।

Berlin Wall
বার্লিন প্রাচীর। image source: historyextra.com

বার্লিনের একত্রীকরণ

বার্লিনের ইতিহাসে একটি নতুন অধ্যায় শুরু হয়েছিল ৯ নভেম্বর, ১৯৮৯ তারিখে, যেদিন প্রাচীরটি ভেঙ্গে পড়েছিল – যে প্রাচীরটি ২৮ বছর ধরে শহরটিকে দুটি অংশে বিভক্ত করে রেখেছিল। আজ বার্লিন ইউরোপের পূর্ব ও পশ্চিমের পুনঃএকত্রীকরণের জন্য একটি সিসমোগ্রাফ। ২০ জুন,১৯৯১, জার্মান সংসদ (বুন্ডেস্ট্যাগ) ফেডারেল সরকারের আসনটি বার্লিনে ফিরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

 

Feature Image: vidalingua.com
তথ্যসূত্র:

  1. Berlin Wall – History, Dates & The Fall – HISTORY.
  2. Berlin – Historical and Political Background (mathunion.org).
  3. History – Berlin.de.
  4. A History of Berlin – Local Histories.
  5. Berlin’s History | visitBerlin.de.
  6. History of Berlin – Past and present of Berlin (introducingberlin.com).
  7. Berlin | History, Map, Population, Attractions, & Facts | Britannica.

 

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
নুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!