পারফিউমের ইতিহাস

575
0

সুগন্ধির আবিষ্কার হয়েছে হাজার হাজার বছর আগে। কেননা, মেসোপটেমিয়া, প্রাচীন মিশর, রোমান এবং পারস্য সাম্রাজ্যে সুগন্ধি ব্যাপকভাবে প্রচলিত ছিল বলেই জানা যায়। জুলিয়াস সিজারকে হত্যার পর ক্লিওপেট্রা, রোমান জেনারেল মার্ক অ্যান্টনিকে একটি নৌকায় সুগন্ধি পাল দিয়ে অভ্যর্থনা জানিয়েছিলেন এবং মিশরের রানী হয়েছিলেন বলেও ইতিহাস ঘেঁটে জানা যায়। সুগন্ধিগুলি স্বাস্থ্যবিধি এবং পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি আনুষ্ঠানিকভাবে এবং আভিজাত্যের প্রতীক হিসাবে ব্যবহৃত হতো তখনকার দিনে। অবশ্য এই প্রচলনটা এখনও রয়েই গেছে।

আমরা সুগন্ধি ব্যবহার করি অন্যকে আকৃষ্ট করতে, খুশি করার জন্য, কিংবা অন্যের কাছে নিজের পরিচ্ছন্নতার স্পষ্টতা প্রমাণের জন্য, অথবা একটি আনন্দদায়ক, দীর্ঘস্থায়ী ঘ্রাণে নিজেকে ঘিরে রাখতে। সুগন্ধি বা পারফিউমের কথা উঠলেই হলিউডের বিখ্যাত সেই ‘পারফিউম’ মুভির কথা মনে পড়ে। সেই হিসেবে এটাও বলা যায় যে, সুগন্ধির রয়েছে এক দীর্ঘ ইতিহাস। সেই ইতিহাসই নিয়ে আজকের আয়োজন। তবে শুধু ইতিহাসের পাতায়ই নয় বরং সারা বিশ্বের সংস্কৃতিতে পারফিউমের প্রভাব তথা পারফিউমের আদ্যোপান্ত নিয়েই বিস্তারিত আলাপ হবে।

উৎপত্তির ইতিহাস

ইংরেজি শব্দ ‘পারফিউম’ ল্যাটিন ‘perfume’ থেকে এসেছে যার অর্থ ‘ধোঁয়ার মাধ্যমে।’ ফরাসিরা ধূপ জ্বালানোর ফলে উৎপন্ন ঘ্রাণের নাম দেয় ‘পারফাম।’ পূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, সুগন্ধির ইতিহাস অবশ্যই সাম্প্রতিককালের নয়। প্রকৃতপক্ষে, সুগন্ধির প্রথম রূপ ছিল ধূপ প্রজ্বলন। প্রায় ৪ হাজার বছর আগে মেসোপটেমিয়ানরাই প্রথম ধূপের প্রচলন করেছিল। তাদের বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে নানান পদের রজন এবং কাঠ পোড়াতো প্রার্থনা এবং ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান উদযাপনে পবিত্রতাস্বরূপ সুগন্ধী ব্যবহার করতো। এই অনুশীলনের বেশ কয়েকটি কাজ ছিল। প্রথমত, দেবতাদের সুরক্ষা এবং কল্যাণ নিশ্চিত করার জন্য তেল এবং কাঠ পোড়ানো প্রয়োজন হতো। এছাড়াও, মৃতদের কাছে বার্তা এবং প্রার্থনা জানাতে, শরীরকে শুদ্ধ করতে সুগন্ধি ব্যবহার করা হতো। 

প্রাচীন মিশরের পারফিউম। Image Source: www.carrementbelle.com

সময়ের সাথে সাথে, ঘ্রাণের ব্যবহার কেবলই পবিত্রতার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল না; বরং দৈনন্দিন স্বাস্থ্যবিধিতেও প্রবর্তিত হয়েছিল। ইতিমধ্যেই প্রাচীন সময়ে মিশরে প্রচুর পরিমাণে মশলা, সুগন্ধী এবং রজনের একটি তীব্র বাণিজ্য ছিল। তাই, মধ্যপ্রাচ্য, আরব এবং ভারতীয় দেশগুলির মতো দূরবর্তী দেশগুলি থেকেও আমদানি করা হতো সূক্ষ্ম কাঠ, সুগন্ধযুক্ত রজন, গন্ধরস এবং ধূপ। যা তৎকালীন সুগন্ধির প্রধান উপাদানগুলির মধ্যে কয়েকটি মূল্যবান উপাদান। 

তবে পবিত্রতার সাথে ঘ্রাণের সম্পর্কটা সময়ের সাথে সাথে হারিয়ে যায়নি। বরং এটি বহু শতাব্দী ধরে ধর্মনিরপেক্ষতার সাথে একত্রে চলে আসছে।। ইহুদি ধর্মে পবিত্র নৈবেদ্য হিসাবে সুগন্ধি ব্যবহারের একটি মূল্যবান সাক্ষ্য পাওয়া যায়। বাইবেলে বর্ণিত, পতিতাদের আরাধনা ধূপ এবং গন্ধরসের মতো পবিত্র নির্যাস নিবেদনের অঙ্গভঙ্গির গুরুত্ব প্রদর্শন করে। উপরন্তু, ধর্মীয় অনুষ্ঠানে সুগন্ধি শরীরকে শুদ্ধ করতে এবং একটি বাস্তব প্রসাধনী হিসাবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। অগুণ্ট, জল এবং সুগন্ধি তেলগুলি ধীর গতির প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পাওয়া যেত এবং সুগন্ধযুক্ত উদ্ভিদ, কাঠ এবং রজন থেকে নির্যাস আহরণ করা হতো। 

প্রাচীন গ্রীকদের সময়কালে, সুগন্ধি তার ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান ত্যাগ করে এবং সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সাথে মিশে যায় ধীরে ধীরে। পবিত্র আচার-অনুষ্ঠান, জন্ম, বিবাহ এবং অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানের মতো গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তগুলির সাথে অবিরত থাকার ফলে, সুগন্ধি এখন অপবিত্র গোলকের মধ্যেও প্রবেশ করে ফেলে। এটি সৌন্দর্য এবং শরীরের যত্নের পৌরাণিক কাহিনীর সাথে যুক্ত, এবং সঠিক অর্থে বলতে গেলে এটি দৈনন্দিন জীবনে একটি মৌলিক ভূমিকা পালন করতে শুরু করে। 

পারফিউম প্রস্তুত প্রণালী। Image Source: classbento.com

রোমানরা প্রাচ্য এবং হেলেনিস্টিক ঐতিহ্য সংগ্রহ করেছিল। তারা পবিত্র এবং অপবিত্র উভয় ক্ষেত্রেই সুগন্ধি ব্যবহার করতো। রোমে, ক্রমাগত বিজয় এবং অভিযানের জন্য তারা বিভিন্ন সংস্কৃতি এবং রীতিনীতির প্রভাব অনুভব করতে শুরু করে। যা ধীরে ধীরে আত্মীকৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, ইট্রুস্কানে বিশেষ পাত্রে খেলার মুহূর্ত, নাচ এবং অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার সময় সুগন্ধি ছড়িয়ে দেওয়া হতো। এটি বিশেষত তখনই করা হতো যখন রোমান ডোমাসে সুগন্ধের বিস্তার প্রতিদিনের আনন্দদায়ক পরিস্থিতি এবং ভোজসভার সাথে মিলিত হতো। 

রোমানদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উদ্ভাবনগুলির মধ্যে একটি হল সুগন্ধির জন্য ব্লো – কাঁচের পাত্রের ব্যবহার। এই উপাদানটি গন্ধহীন এবং আকারে সহজ। তাই, বিভিন্ন আকার এবং রঙে তৈরি করা যেতো; যা প্রসাধনী এবং সুগন্ধীযুক্ত তেল ধারণ করার জন্য উপযুক্ত ছিল। পশ্চিমা অধিগ্রহণ এবং আরব বৈজ্ঞানিক জ্ঞানের মধ্যে পারস্পরিক প্রভাবের কারণে প্রাচ্য সংস্কৃতিতেও সুগন্ধি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে। বিশেষ করে, আরবদের মধ্যে ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য, শুদ্ধকরণের আচারের জন্য বা বায়ু বিশুদ্ধিকারক হিসাবে সুগন্ধি ব্যবহার করে। আরবরা অ্যালেম্বিকের উদ্ভাবক এবং পাতনের প্রাচীন শিল্পের সমগ্র ইউরোপ জুড়ে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

সুগন্ধি জমি থেকে অনেক প্রয়োজনীয় তেল পাওয়া যায়। সবচেয়ে বেশি পাওয়া যেত গোলাপ জল। যা বাড়ি সুগন্ধি করতে এবং ধর্মীয় স্থানে লোকদের শুদ্ধ করতে এবং খাবার ও পানীয় প্রস্তুত করতে সাধারণত ব্যবহার করা হতো। রসায়ন এবং আলকেমি আবিষ্কারের ফলে, আরবারা বিশ্বজুড়ে মূল্যবান কাঁচামাল রপ্তানি করার অনুমতি পায়। এইভাবে বহু শতাব্দী ধরে তারা সুগন্ধির বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণ করে। 

কাঁচের বোতল দামী পারফিউম। Image Source: luxahabit.com

সুগন্ধির ইতিহাসের সাথে সুদূর প্রাচ্যও জড়িত। যেটা দীর্ঘকাল ধরে পশ্চিমা সভ্যতার কাছে অজানা ছিল। একটি বহিরাগত এবং রহস্যময় কবজ অর্জন করেছিল সুগন্ধ, মশলা, রেশম এবং অন্যান্য মূল্যবান পণ্যগুলি সরবরাহ করে। চীনা সংস্কৃতিতে, অতীতে ভাল একটি সুগন্ধ ব্যবহার করতো বলে যায়। যার জন্য তাদের প্রশংসাও ছিল ব্যাপক। তাই প্যাচৌলি এবং ‘চাইনিজ ভায়োলেট’ বা কর্ডেড টেলোসমার মতো আনন্দদায়ক সাধারণ পারফিউম তারা ব্যবহার করতো। যার তীব্র এবং খুব আরামদায়ক সুবাস ছিল। জাপানে সর্বাধিক জনপ্রিয় ঘ্রাণগুলোর মধ্যে ছিল ক্যামেলিয়া, চেরি ফুল এবং ধূপ। যেটা পরবর্তীতে পশ্চিম সংস্কৃতিতেও পবিত্র আচার-অনুষ্ঠানের সাথে ব্যবহার করা হতো। জাপানি সংস্কৃতির এই বৃহৎ আচার এবং ঐতিহ্যগুলো যেমন চা এবং ধূপ অনুষ্ঠান সবকিছু জড়িত ছিল।

এদিকে পশ্চিমে, খ্রিস্টীয় ৫ম শতাব্দীতে রোমান সাম্রাজ্যের পতন এবং বর্বর আক্রমণের সূচনার ফলে, পূর্ববর্তী শতাব্দীতে অর্জন করা বৈজ্ঞানিক জ্ঞানের কিছু অংশ হারিয়ে যায়। প্রাচ্যের সাথে তীব্র বাণিজ্যের ফলে, সুগন্ধির ইতিহাস মধ্যযুগের শুরুতেও অন্ধকার যুগ পর্যন্ত চলতে থাকে। এমনকি ক্যাথলিক ধর্মের পবিত্র আচার-অনুষ্ঠানের জন্য ধূপ ব্যবহার করা হয় এবং অভিজাতদের মধ্যে মূল্যবান উপহার হিসেবে সুগন্ধ বিনিময় করা হতো জানা যায়।

সুগন্ধির বাণিজ্য আবার পূর্ব থেকে পশ্চিমে বৃদ্ধি পায়। ইউরোপে মূল্যবান পণ্যের বাণিজ্য প্রধানত ভেনিস শহর থেকে নিয়ন্ত্রণ করতো। ফুল, সুগন্ধযুক্ত উদ্ভিদ এবং গুরুত্বপূর্ণ তেল যেমন, স্নানের জন্য জল এবং খাবারের আগে হাত ধোয়ার জল সবকিছু  সুগন্ধি থেকে ব্যবহার করা হতো।

উচ্চ শ্রেণীর মহিলারা ল্যাভেন্ডার এবং বেগুনি এসেন্স পরতেন। তাদের পোশাকের নীচে তাঁরা সুগন্ধি ব্যাগ লুকিয়ে রাখতো। আরেকটি খুব জনপ্রিয় যন্ত্র ছিল পোমান্ডার, যেটি ছোট ধাতব পাত্র যা গলায় ঝুলিয়ে রাখতে হয়। যার থেকে প্রাকৃতিক সুগন্ধ  পাওয়া যেতো, যা জায়ফল এবং ল্যাভেন্ডার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হয়। এগুলি সেই সময়ে যে কোনও সামাজিক শ্রেণীর জন্য খুব সাধারণ বস্তু ছিল। ঘরের ভিতরে ধোঁয়া এবং ঘ্রাণ পাওয়ার জন্য লরেল বা রোজমেরি পোড়ানো হতো। 

রোমানদের সময়ে ব্যবহৃত পারফিউমের পাত্র। Image Source: brewmate.com

পাশ্চাত্য সংস্কৃতিতে পারফিউমের ব্যবহার 

রাসায়নিক ক্ষেত্রে জ্ঞান বৃদ্ধি এবং কালা-কৌশলের উন্নতির ফলে সুগন্ধি শিল্প রেনেসাঁয় একটি বিশাল অগ্রগতি লাভ করে। সাধারনত এসেন্স এবং সুগন্ধযুক্ত জলগুলি কিছু রোগের নিরাময় হিসাবে ব্যবহৃত হত। বিশেষ করে, ইতালীয় পারফিউমার ফ্রান্সে ছড়িয়ে পড়ে ব্যক্তিগত সুগন্ধির প্রবণতা হিসেবে। পূর্বেই আমরা জেনেছি ভেনিস শহরে মূল্যবান মশলা এবং সুগন্ধের একটি সমৃদ্ধ বাণিজ্য গড়ে উঠেছিল। যেটি শীঘ্রই ইতালিকে সুগন্ধির জন্য শীর্ষস্থানীয় অবস্থানে নিয়ে গিয়েছিল।

জানা গেছে যে, ১৬০০ সালের শেষের দিকে ব্যবসায়ী জিওভানি পাওলো ফেমিনিস ‘অ্যাকোয়া মিরাবিলিস’ আবিষ্কার করেন। যা মূলত একটি পানীয় জল যা যে কোন রোগ নিরাময় করতে সক্ষম বলে বিশ্বাস করা হতো। তিনি ২০টিরও বেশি বিভিন্ন তত্ত্বের উপর ভিত্তি করে এই বিখ্যাত সুগন্ধি তৈরি এবং ব্যবসা শুরু করেন। কিছুদিন পরেই এই পণ্যটি ফ্রান্স এবং সমগ্র ইউরোপে ‘ইউ ডি কোলোন’ হিসাবে ছড়িয়ে পড়ে। পরবর্তীতে এটি টনিক এবং সুগন্ধি হিসাবেও ব্যবহার করা হত। 

ফ্রান্সে ১৭০০ সালের দিকে সুগন্ধিযুক্ত চামড়ার জিনিসপত্র যেমন পাদুকা, গ্লাভস এবং বেল্টের উৎপাদন ক্রমবর্ধমান ব্যবসায় পরিণত হয়েছিল। লোকেরা প্রলোভন এবং অস্টেন্টেশনের দিকে মনোনিবেশ করে। আতরের জন্য মার্জিত কাঁচের বোতল, ক্যান্ডি বক্স, অভিনব পোমান্ডার এবং পট পউরি এগুলো পারফিউম হিসেবে ব্যবহার করা হতো। অবশেষে, কৃত্রিম সোডা আবিষ্কারের ফলে সাবানের গুণমান ব্যাপক উন্নতি লাভ করে। এই সুগন্ধির পণ্যগুলি প্রাকৃতিক সোডা এবং জলপাই তেলের রাসায়নিক বিক্রিয়া দ্বারা তৈরি করা হতো। জেনোয়া, সাভোনা, ভেনিস এবং মার্সেইলের মতো শহরে উৎপাদন করা হতো। ১৯০০ শতকের শুরুতে, ফরাসি সমাজ নিজেদেরকে লাগামহীন বিলাসিতাভাবে উৎসর্গ করেছিল, যা প্যারিসকে একটি আন্তর্জাতিক ফ্যাশন রাজধানীতে পরিণত করেছে আজকের দুনিয়ায়। 

পারফিউমের বোতল। Image Source: indiamart.com

পারফিউমের খারাপ দিক

পারফিউমের অন্ধকার দিকও আছে। আমাদের বেশিরভাগ সময় শপিং মলে হাঁটার সময় দীর্ঘস্থায়ী পারফিউমের সুগন্ধে প্রায় দমবন্ধ হয়ে যাওয়ার মতো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। বোতলজাত বডি স্প্রেতে ব্যবহত হয় ফ্লোরিনভিক্তিক গ্যাস। এই গ্যাসের ক্ষতিকর প্রভাব প্রায় অনেক বছর পর্যন্ত থেকে যায়। তাছাড়া, গর্ভাবস্থায় কোন নারী সুগন্ধি ব্যবহার করলে মারাত্মক ক্ষতি হয়।

আধুনিক বিশ্বে পারফিউমের ব্যবহার

বর্তমান বিশ্বে সুগন্ধি লক্ষ লক্ষ লোক ব্যবহার করে এবং এটি একটি জনপ্রিয় ফ্যাশনে পরিনত হয়েছে। প্রাকৃতিক এবং কৃত্রিম উপাদান সমৃদ্ধ সুগন্ধি তৈরি করতে ব্যবহৃত হয় যার মধ্যে থাকে বিভিন্ন স্তরের গন্ধ এবং বিভিন্ন জটিল ধাপ। সুগন্ধির দাম নির্ভর করে মূলত সুগন্ধির মানের ওপর। বর্তমান বিশ্বে বিভিন্ন ঘনত্বে সুগন্ধি পাওয়া যায়। ইতিহাস ঘটলে আমরা জানতে পারি যে, শৈলী ও জনপ্রিয়তার সমার্থক হিসেবে, ইতালির তৈরি সুগন্ধি সারা বিশ্বে যথেষ্ট প্রভাব ফেলেছে।

 

Feature Image: ninfehomeco.com
তথ্যসূত্র:

  1. The Story of Perfume.
  2. The Long, smelly history of Perfume.
  3. The fascinating history of Perfume and Cologne.

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
নুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!