পেত্রা শহরের রহস্য ও সৌন্দর্য

64
0

পেত্রা জেরুজালেম এবং জর্ডানের রাজধানী আম্মান উভয়ের প্রায় ১৫০ মাইল দক্ষিণে এবং দামেস্ক, সিরিয়া এবং লোহিত সাগরের মাঝখানে অবস্থিত। যা এই অঞ্চলে বাণিজ্যের কেন্দ্র ও আদর্শ স্থান হিসেবে গড়ে উঠেছে। স্থানটিকে ঐতিহাসিক এবং প্রত্নতাত্ত্বিকদের দ্বারা সমানভাবে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হয়।

এর অন্যতম কারণ হল সুন্দর শিলা-কাটা স্থাপত্য এবং উদ্ভাবনী জল ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি। জল ব্যবস্থাপনা এই অঞ্চলটিকে বসবাসযোগ্য করে তুলেছিল। কারণ এটি মরুভূমি এবং রুক্ষ, পাহাড়ী ভূখণ্ড দ্বারা বেষ্টিত। পেত্রাজে ‘রোজ সিটি’ হিসাবেও ডাকা হয়। ভবনগুলিতে ব্যবহৃত পাথরের রঙের কারণেই এমন নামে ডাকা হয়। এটি ১৯৮৫ সালে ইউনেস্কো কর্তৃক ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে ঘোষিত হয়।

আবিষ্কার

ভ্রমণ পিপাসু ও আবিষ্কারক জিন লুই বার্কহার্ট ১৮১২ সালে তার ডায়রিতে উল্লেখ করেছিলেন ‘পেত্রা প্রাচীনত্বের সবচেয়ে বিস্ময় আবিষ্কারগুলোর একটি।’ পেত্রাতে বার্কহার্টের আগমনের ৬০০ বছর আগ পর্যন্ত পশ্চিমের দেশগুলোর জনগণ পেত্রা সম্পর্কে জানতো না। ক্রুসেডের সময় থেকে পশ্চিমের দেশগুলোর কাছে অনেকটাই অপরিচিত ছিল এই জায়গাটা।

brown rocky mountain under white sky during daytime
পেত্রা, জর্ডান, image source: unsplash.com/Zena Al-yousef

পেত্রা ছিল প্রাকৃতিক দুর্গ। তবে স্থানীয় বেদুইন উপজাতিদের কাছে এটি পরিচিত ছিল। কিন্তু তারা এটির সাথে বহিরাগত মানুষদের পরিচয় করিয়ে দিতে চাইতো না। পরিচয় না করিয়ে দেয়ার অন্যতম কারণ ছিল যাতে বহিরাগত মানুষেরা গুপ্তধনের সন্ধান না পেয়ে যায়।

বার্কহার্টের গোপন পরিকল্পনা

বার্কহার্ট যখন কায়রোর দক্ষিণে ভ্রমণ করেন সেই সময় তিনি ওয়াদি মুসার পাহাড়ের মধ্যে লুকিয়ে থাকা ধ্বংসাবশেষের গুজব শুনতে পান। তিনি একটি কৌশল অবলম্বন করেছিলেন,

‘আমি ভান করেছিলাম যে হারুন (হারুন) এর সম্মানে একটি ছাগল জবাই করার প্রতিজ্ঞা করেছি। আমি জানতাম যে সমাধিটি উপত্যকার প্রান্তে অবস্থিত ছিল,’ তিনি লিখেছেন, ‘এবং এই কৌশলে আমি ভেবেছিলাম যে সমাধির পথে উপত্যকাটি দেখার উপায় আমার থাকা উচিত।’

Petra Jordan during daytime
পেত্রা, জর্ডান image source: usplash.com/Emile Guillemot

তার পরিকল্পনা কাজ করেছিল। শহরে প্রবেশ করে তিনি তার গাইডের কাছ থেকে তার বিস্ময় লুকিয়ে রাখতে সক্ষম হননি। দুজনে উপত্যকার গভীরে যাওয়ার সময়, বার্কহার্ট অগণিত সমাধি এবং পাথরে খোদাই করা দুর্দান্ত অ্যাম্ফিথিয়েটার দেখেন। যতই দেখেন ততোই তিনি হতবাক হয়েছিলেন। তিনি নতুন জিনিস আবিষ্কারের আশায় উদ্বেলিত হয় পড়েন।

তখন গুহাগুলো ছিল একেবারে খালি; অশোভিত কিন্তু প্রাকৃতিকভাবেই শিলাগুলো ডোরাকাটা রঙের দ্বারা সজ্জিত ছিল। যেন কেউ নিজ হাতে খোঁদাই করে সাজিয়েছে। বার্কহার্টের অনুপ্রবেশ তার গাইডকে অবাক করে দিয়েছিল। বার্কহার্টকে গাইড দ্রুত শহরের শুকনো কোর, কলোনেড স্ট্রিট এবং কাসর আল বিনতে মন্দিরে নিয়ে যায়।

তবে বার্কহার্টের শেষ ধ্বংসাবশেষ ঘুরে বেড়ানোর প্রচেষ্টাই ছিল চূড়ান্ত লক্ষ্য। ‘আমি এখন স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি যে তুমি একজন কাফের!’ তার গাইড চিৎকার করে বলেছিল। উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হলে তার নিজের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পত্তির আবিষ্কারের ইচ্ছা তিনি হারিয়ে ফেলেন। এরপর বার্কহার্ট আর আগানোর সাহস করেননি।

horse carriage near canyon
ঘোড়ায় টানা বাহন, পেত্রা image source: unsplash.com/ Spencer Davis

কিন্তু বার্কহার্ট যে ধন সম্পদ আবিষ্কার করতে চাননি। তার উদ্দেশ্য ছিল মানুষকে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে নাড়া দেয় এমন কিছু আবিষ্কার করা। তিনি সিরিয়ার আলেপ্পোতে চলে আসেন। আরবি ভাষা আয়ত্ত করেন। ইসলাম গ্রহণ করেন। সেখানে শেখ ইব্রাহিম বিন আবদুল্লাহ নাম ধারণ করেন।

একটি গভীর তান এবং পূর্ণ দাড়ি নিয়ে ২৭ বছর জাতিতাকে স্পষ্ট করে দেখতে চেয়েছিলেন। তিনি স্থানীয় রীতিনীতি গ্রহণ করে এবং বেদুইনদের মধ্যে তার উপনাম পরীক্ষা করে ছদ্মবেশে মাস্টার হয়ে ওঠেন। মূলত বার্কহার্ট এর মাধ্যমে পেত্রা সারা বিশ্বে নতুন করে পরিচয় পায়।

পেত্রা শহর

পেত্রা শহরটি বর্তমান দক্ষিণ-পশ্চিম জর্ডানের অঞ্চলের আদিবাসী আরব বেদুইন উপজাতি নাবাতেনদের দ্বারা একটি ব্যবসায়িক কেন্দ্র হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

পেত্রাতে নাবাতিয়ানদের বসবাস শুরু হয় ও ব্যবসা দ্বারা অল্প সময়ে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে সম্পদ সঞ্চয় করে। যার ফলে এই সম্পদের প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি গ্রীক সাম্রাজ্য ৩১২  খ্রিস্টপূর্বাব্দে শহরটিকে আক্রমণ করে। এই ঘটনাটি নথিভুক্ত ইতিহাসে  প্রথম উল্লেখ হয়।

brown rock formation during daytime
ওয়াদি মুসা ছিটমহল, পেত্রা image source: unsplash.com/Jorge Fernández Salas

নাবাতিয়ানরা শহরের চারপাশের পার্বত্য অঞ্চলের সুবিধা নিয়ে গ্রীক আক্রমণকারীদের বিরুদ্ধে সফলভাবে লড়াই করেছিল। পর্বতগুলি প্রাকৃতিক প্রাচীর হিসাবে কাজ করে পেত্রাকে রক্ষা করে। রোমানরা ১০৬ খ্রিস্টাব্দে পেত্রা আক্রমণ করে এবং শেষ পর্যন্ত নাবাতেনদের আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য করেছিল। রোমান সাম্রাজ্য নতুন অর্জিত অঞ্চলকে সংযুক্ত করে এবং এর নাম পরিবর্তন করে আরব পেত্রায়া রাখে।

খ্রিস্টীয় চতুর্থ শতাব্দীর মাঝামাঝি পর্যন্ত তারা ২৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে এই শহর শাসন করে। পরে একটি ভূমিকম্পে এর অনেক ভবন ধ্বংস হয়। বাইজেন্টাইনরা অবশেষে এই অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল এবং প্রায় ৩০০ বছর ধরে পেত্রা শাসন করেছিল।

হারানো শহর পেত্রা

খ্রিস্টীয় অষ্টম শতাব্দীর শুরুতে, পেত্রা মূলত পরিত্যক্ত হয়েছিল এবং বাণিজ্যিকভাবে, রাজনৈতিকভাবে এবং/অথবা সাংস্কৃতিকভাবে আর তেমন উল্লেখযোগ্য অবস্থান ছিল না। তার গৌরব অনেকটাই হারিয়ে ফেলেছিল। যদিও এখন আর এটি গুরুত্বপূর্ণ শহর নয়; তবে পেত্রা ঐতিহাসিক এবং প্রত্নতাত্ত্বিকদের দ্বারা তার অনন্য স্থাপত্যের জন্য বিশেষ স্থান দখল করে আছে।

পাশাপাশি শহরটি প্রতিষ্ঠাকারী নাবাতেন বেদুইনদের দ্বারা তৈরি নির্দিষ্ট উদ্ভাবন পদ্ধতির জন্য গুরুত্ব লাভ করছে। এটিকে ঘিরে থাকা রুক্ষ পাহাড়ী ভূখণ্ডের জন্য পেত্রাকে একটি শহর নির্মাণের জন্য একটি যৌক্তিক জায়গা বলে মনে হবে না। নাবাতিয়ানরা নির্মাণ শৈলীর দ্বারা ভূগোলের কঠিন অবস্থাকেও সুবিধাজনক করে তুলেছিল।

man in blue shirt riding camel near brown rock formation during daytime
পর্যটকবাহী উট, পেত্রা image source: unsplash.com/Jorge Fernández Salas

রক-কাট আর্কিটেকচার নামে পরিচিত কৌশলটির একটি প্রাথমিক রূপ ব্যবহার করে নাবাতিয়ানরা আক্ষরিক অর্থে আশেপাশের পাথরের পৃষ্ঠের বাইরে শহরের বেশ কয়েকটি ভবন খোদাই করেছিল। নাবাতেন সংস্কৃতির বিকাশের সাথে সাথে এবং রোমান এবং বাইজেন্টাইনরাও শাসনকালীন সময়ে শহরে তাদের নিজস্ব চিহ্ন রেখে যাওয়ার চেষ্টা করে। পেত্রার স্থাপত্যটি  দখলকারী বিভিন্ন সংস্কৃতির মিশ্রণের ফলে আরও সমৃদ্ধ হয়ে উঠে। নাবাতিয়ানদের দ্বারা নির্মিত বড় এবং অলঙ্কৃত সমাধিগুলি শেষ পর্যন্ত বাইজেন্টাইনরা খ্রিস্টান গীর্জায় পরিণত করে।

এরা পেত্রাকে প্যালেস্তিনা প্রদেশের রাজধানী বলে মনে করেছিল। এই বিবর্তনের সময়, যখন রোমানরা নাবাতিয়ানদের পরে এবং বাইজেন্টাইনদের আগে শহরটি শাসন করেছিল, পেত্রা রোমান রোড তৈরি হয়েছিল। এটি পেত্রার প্রধান রাস্তা হিসাবে কাজ করেছিল এবং শহরের প্রবেশপথ চিহ্নিত করার জন্য রোমান শৈলীতে অলঙ্কৃত গেটগুলি তৈরি করা হয়েছিল। শহরের নকশা এবং কাঠামোর উপর নাবাতিয়ানদের প্রভাব পরবর্তী শাসকরা সম্পূর্ণরূপে নির্মূল করেনি।

পানি ব্যবস্থাপনা ও ফসল উৎপাদন

মরুভূমির বাসিন্দা হিসাবে, নাবাতিয়ানরা বিভিন্ন ঋতুতে দীর্ঘ সংগ্রাম করতে অভ্যস্ত ছিল। এই অঞ্চলে বৃষ্টিপাত সীমিত ছিল। তারা সারা বছর ব্যবহারের জন্য বৃষ্টির জল সংগ্রহ, সঞ্চয় এবং বিতরণের জন্য নালা, বাঁধ এবং সিস্টারনের একটি অনন্য ব্যবস্থা তৈরি করেছিল।

পেত্রার জল নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা। Image Source: Mays, Arizona State University.

বছরের নির্দিষ্ট সময়ে, শহরের চারপাশের এলাকা বন্যার প্রবণতা ছিল। তারা কার্যকরভাবে বাঁধ ব্যবহার করে এই বন্যা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছিল এবং তাই, শহরের জল সরবরাহ করে তারা খরা ও বন্যার সময়ে খুব সহজেই শহরে বসবাস করতে পারত। নাবাতেনরা কৃষকদের ফসল ফলানোর ক্ষেত্ও তেমন অসুবিধা হত না।

এখানকার সবচেয়ে বড় মঠও ৪৫ বা তার বেশি মিটার উঁচু এবং প্রায় ৫০ মিটার চওড়া। সম্ভবত একটি মন্দির হিসাবে নির্মিত হয়েছিল। এখান থেকে প্যানোরামিক দৃশ্যগুলি দুর্দান্ত দেখা যায়। রাজকীয় সমাধি রয়্যাল টম্বস হল পেত্রার সবচেয়ে দর্শনীয় সমাধিস্থলগুলির মাঝে অন্যতম। সূক্ষ্ম খোদাই দ্বারা সজ্জিত, চিত্তাকর্ষক সম্মুখভাগগুলি শেষ বিকেলে সূর্যের সোনালী রশ্মি অস্তমিত সময় সাথে সাথে রুপ ধারণ করে।

 

Feature Image: islamicity.org
References:

01. Petra.
02. The Lost City of Petra.
03. Petra: Growing up in Jordan’s lost city.
04. Petra: Journeying Into The Lost City.
05. Petra: secrets of Jordan’s lost city.
06. Petra.

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
নুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!